বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৫:৫৭ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
সিলেট বিভাগের ১০টিসহ দেশের ৮৭ উপজেলায় ভোটযুদ্ধ আজ ১০ বছরে শাস্তি পেয়েছেন ১৮১ সরকারি কর্মকর্তা শাহজালালের (র.) মাজারে গিলাফ ছড়ানোর মধ্য দিয়ে শুরু হলো ওরস ব্যাংকের গাফিলতিতে ৬৮২ জনের হজযাত্রা অনিশ্চিত ৪৬ হাজার প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া স্থগিতের নির্দেশ হাইকোর্টের জগন্নাথপুরে ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে ভেঙে পড়েছে গাছপালা, বিঘ্নিত বিদ্যুৎ সরবরাহ কুলাউড়ায় পানি নিষ্কাশনের অব্যবস্থাপনা আর সড়কের কারণে ভোগান্তি প্রত্যয় স্কিম বাতিলের দাবিতে সিকৃবি শিক্ষকদের কর্মবিরতি প্রধানমন্ত্রী নারীদের উন্নয়নে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছেন: বিভাগীয় কমিশনার শাবির প্রথম ছাত্রী হলে দুই সহকারী প্রভোস্ট নিয়োগ বিয়ের আসরে আসামি, পুলিশ বলছে পলাতক শালায় কলেজ শিক্ষককে পেটালেন পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী কুলাউড়ায় বাঁধ ভেঙে প্লাবিত হলো ২০টি গ্রাম ধলাই নদীতে যুবক নিখোঁজ হবিগঞ্জে সাড়ে ৩ লাখ শিশুকে খাওয়ানো হবে ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপসুল ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড সুন্দরবন ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডবে প্রাণ গেল ২১ জনের সিলেটে চোরাই মোটরসাইকেলসহ যুবক গ্রেফতার ওসমানীনগরে প্রবাসীদের নিয়ে ব্র্যাকের কর্মশালা ৭দফা দাবিতে ব্যাটারিচালিত যানবাহন শ্রমিকদের বিক্ষোভ সরকার কৃষকদের প্রতি সবসময় আন্তরিক: সংসদ সদস্য নাহিদ লাখাইয়ে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত ১৫ সিলেটের ১০ উপজেলায় তিনদিন মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা সিসিকের ভারপ্রাপ্ত মেয়র কামরান সিলেটের ১০ উপজেলায় তিনদিন মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা শপথ নিলেন ১১ উপজেলার নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা বুক পেতে উপকূলকে রক্ষা করল সুন্দরবন ঘূর্ণিঝড় রিমালে ১০ জনের মৃত্যু, দেড় লাখ ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে অংশীদার হোন: প্রধানমন্ত্রী কপিল শর্মা শো’তে কাজের প্রলোভনে ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ১
হাওরে শ্রমিক আর মেশিন সংকট
ধান কাটানো নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষকেরা

হাওরে শ্রমিক আর মেশিন সংকট
ধান কাটানো নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষকেরা

 

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :: ‘আট কিয়ার জমিন করছি কয়েকজন মিল্লা। রংপুর থাকি মেশিন আনতাম চেষ্টা করছিলাম। কালকে রাতেও কথা অইছে। আইজ সকাল থেকে আর ফোন ধরছে না হারভেস্টারের মালিক। ধান পাকি গেছে, দাওয়ালও (ধান কাটার শ্রমিক বা ভাগালু) পায়রাম না। কোনো সুবিধা করতাম পাররাম না। মেশিনের জন্য হন্যে হয়ে ঘুররাম, মেশিনও পায়রাম না।’

 

কপালে চিন্তার ভাঁজ নিয়ে এসব কথা জানান সুনামগঞ্জের হাওরবেষ্টিত উপজেলা শাল্লার ভান্ডাবিল হাওরপারের হবিবপুর গ্রামের প্রান্তিক কৃষক নিতিশ পুরকায়স্থ।

 

নিতিশের পাশে দাঁড়ানো হবিবপুর নোয়াগাঁওয়ের প্রসূন কান্তি দাস জানান, তিনি এক হাল (চার একর) জমি চাষাবাদ করেছেন। এক কেয়ার জমিও কাটতে পারেননি। বেপারি (দাওয়াল) পাচ্ছেন না। বড় হারভেস্টার মেশিনের জন্য মঙ্গলবার আনন্দপুর এসেছিলেন। এখানেও মেশিন পাননি।

 

আনন্দপুরের কৃষক রাধেশ দাস বলেন, ধান কাটানোর কোনো উপায় নাই। শ্রমিকও পাওয়া যাচ্ছে না। কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন কাগজে অনেক আছে বাস্তবে নেই।
এই কৃষক বলেন, আগে ফরিদপুর, যশোর, কিশোরগঞ্জ, পাবনা, গোপালগঞ্জ, সিরাজগঞ্জ, রংপুর, দিনাজপুর, কুমিল্লা, শেরপুরসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে ধান কাটা শ্রমিক আসত এ উপজেলায়। এখন এসব শ্রমিকরা একেবারেই আসে না। সরকার ৭০ শতাংশ ভর্তুকি দিয়ে এলাকার কৃষকের ফসল কাটার জন্য মেশিন দিছে। এসব মেশিন বেশিরভাগেরই হদিস নাই। কৃষি অফিসকে এর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবি জানাই।

 

পাশে দাঁড়ানো কৃষক অলক রায় জানান, তিন দিন হয় একটি কম্বাইন্ড হারভেস্টারের পেছনে পেছনে ঘুরছেন তিনি তার এক আত্মীয়ের জমির ফসল কাটার জন্য। কিন্তু মেশিনটি নিতে পারছেন না। তিনি বলেন, আতঙ্কের মধ্যে আছি। আকাশের দিকে তাকাচ্ছি, আবহাওয়া খারাপ করলে বিপদ হবে।’

 

শাল্লা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বড় কৃষক আব্দুস ছাত্তার বলেন, আমি ৯০ কেয়ার (৩০ একর) জমি চাষাবাদ করেছি। এখন ধান কাটানো নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছি। উপজেলা কৃষি অফিস কম্বাইন্ড হারভেস্টার আরও বরাদ্দ দেওয়ার জন্য ঊর্ধ্বতন কতৃর্পক্ষকে চিঠি দিয়েছিল। কিন্তু মেশিন পাওয়া যায়নি। আবহাওয়া খারাপ করলে মানুষ বিপদে পড়বে।

 

নওয়াগাঁও গ্রামের মাখন লাল দাস একজন বড় কৃষক। তিনি বলেন, আশপাশের ৫টি বড় গ্রাম নিয়ামতপুর, আনন্দপুর, চরগাঁও, নোয়াগাঁও, আঙ্গারুয়া ও সুখলাইনসহ কমপক্ষে ৭/৮টি বড় কম্বাইন্ড হারভেস্টার দরকার। কৃষি অফিস সূত্রে জানতে পারলাম আনন্দপুর গ্রামে ৫টি বড় মেশিন দিয়েছে সরকার। কিন্তু ২টি বড় মেশিন ব্যতিত অন্য মেশিনগুলো এখন পাওয়া যাচ্ছে না। যে ২টি কম্বাইন্ড হারভেস্টার আছে, সেটি দিয়ে কে আগে, কে পরে ধান কাটাবে- রীতিমতো ঝগড়াঝাটি লেগে যাচ্ছে। স্থানীয় শ্রমিকরা গ্রুপ করে কিছু কিছু ধান কাটছে। আবহাওয়া খারাপ হলে মানুষ মহাবিপদে পড়বে।

 

একজন কৃষি ব্লক সুপারভাইজার জানান, তার ব্লকে ৫টি হারভেস্টার কাগজে-পত্রে রয়েছে। কিন্তু বাস্তবে ৩টিই নষ্ট। একটি কাজ করলেও এই মেশিন দিয়ে ধান কাটা যাচ্ছে না। তবে অন্য জেলা থেকে কম্বাইন্ড হারভেস্টার আসতে শুরু হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

 

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মাসুদ তুষার বলেন, সত্যি বিষয় হলো কাগজে-পত্রে শাল্লায় ৪৯টি বড় হারভেস্টার মেশিন রয়েছে। কিন্তু বাস্তবে ভিন্ন চিত্র। কয়েকটি মেশিন বিকল আছে বলে কৃষকরা জানান। তবে এলাকার বহু কৃষক বলছেন- কিছু কিছু মেশিন মালিক অধিক মূল্যে উপজেলার বাইরে বিক্রি করে দিয়েছেন। ফলে ধান কাটা নিয়ে কৃষকরা চিন্তিত হয়ে পড়েছেন। এমন হলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে বাইরের জেলা থেকে মেশিন আসছে।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo