সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৩১ অপরাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
দোয়ারাবাজারে আ.লীগের ঈদ পুনর্মিলনী ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত সিলেটে বর্ণিল আয়োজনে বর্ষবরণ জৈন্তাপুরে বাংলা নববর্ষ উদযাপন বিএনপি বাঙালি সংস্কৃতিকে সহ্য করতে পারে না: কাদের আসুন, সুন্দর ভবিষ্যৎ বিনির্মাণে একযোগে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে, কাল ঈদ সবার সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করুন: প্রধানমন্ত্রী নিসচা জুড়ী উপজেলা শাখার কমিটি গঠন মহানগর বিএনপির ঈদ শুভেচ্ছা সামর্থ্যানুযায়ী দুঃখি মেহনতী মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে: ড. মোমেন এমপি চাঁদ দেখা যায়নি, ঈদ বৃহস্পতিবার মহানগর আ.লীগের ঈদ শুভেচ্ছা বিএনপি ভুলের চোরাবালিতে নিমজ্জিত: কাদের রাজকুমার’ শাকিবকে যা বললেন ‘প্রিয়তমা’ ইধিকা সৌদি আরবে ঈদের তারিখ ঘোষণা সিলেটে বর্ষবরণের যত আয়োজন সরকার দেশ ও মানুষের কথা সবসময় ভাবে: ড. এ কে আব্দুল মোমেন এমপি নদীর চর কেটে মাটি বিক্রি, ঝুঁকিতে প্রতিরক্ষা বাঁধ পর্যটকদের বরণে প্রস্তুত কমলগঞ্জ জুড়ীতে ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের ঢেউটিন প্রদান লোডশেডিং আর তীব্র পানি সংকটে নাকাল নগরবাসী ঈদের দিন কেমন থাকতে পারে সিলেটের আবহাওয়া হুন্ডি আর প্রচারণার অভাবে কমলো রেমিট্যান্স জগন্নাথপুরে পাঁচ ব্যাংকের এটিএম বুথে নেই টাকা, ভোগান্তিতে গ্রাহকেরা মেধাবী শিক্ষার্থীরা দেশের সম্পদ: মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী সিলিংয়ের ঝুলছিল বিশাল অজগর শ্রীমঙ্গলে নিলামে ১টি ডিম ১৯ হাজার, ১টি আতা ফল ১৫শ টাকা! ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে ‘কিশোর গ্যাং’ মোকাবিলার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর আবারও বাড়ল স্বর্ণের দাম শ্রুতি সম্মাননা পাচ্ছেন বাউল আবদুর রহমান
অর্ধেক মজুরিতেও কাজ পাচ্ছেন না বাংলাদেশিরা
স্বপ্নের লন্ডনে গিয়ে স্বপ্নভঙ্গের হতাশা

অর্ধেক মজুরিতেও কাজ পাচ্ছেন না বাংলাদেশিরা
স্বপ্নের লন্ডনে গিয়ে স্বপ্নভঙ্গের হতাশা

 

জাগ্রত সিলেট ডেস্ক :: স্বপ্নের দেশে গি‌য়ে স্বপ্নভঙ্গের হতাশায় দিন কাটছে সদ্য যুক্তরাজ্যে যাওয়া বাংলাদেশিদের। ব্রিটেনে সরকার নির্ধারিত ন্যূনতম মজুরি ঘণ্টাপ্রতি ১১ পাউন্ড ৪৪ পয়সা। কিন্তু সেখানে অর্ধেকেরও কম প্রতি ঘণ্টায় ৫ পাউন্ডেও কাজ পাচ্ছেন না হাজারও বাংলাদেশি।

 

গত তিন বছরে ছাত্র ও কাজের ভিসায় পরিবার নিয়ে যুক্তরাজ্যে গেছেন কয়েক হাজার বাংলাদেশি। এদের বড় অংশই বসবাস করেন লন্ডনের বিভিন্ন এলাকায়। রাজধানী লন্ডনেই দেশটির মধ্যে সবচেয়ে বেশি কাজের সু‌যোগ থাকলেও এ শহ‌রে মাসের পর মাস কাজ না পেয়ে বেকার হাজা‌রও বাংলাদেশি। ব্রিটেনের বাংলাদেশি কমিউনিটির ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে কাজের জন্য হাহাকার। পরিচিত পর্যায়ে যোগাযোগ করেও মিলছে না কাজ। হাজা‌রও বাংলাদেশি দেশ থে‌কে যাওয়ার পর মাসের পর মাস বেকার। বাংলাদেশি, ভারতীয় ও পাকিস্তানি ক‌মিউনি‌টি‌তে অবস্থা প্রায় একই।

 

ফেসবুকে বাংলাদেশি কমিউনিটির একটি গ্রুপে নাম প্রকাশ না করে সহযোগিতা চেয়ে একটি পোস্ট দিয়েছেন লন্ডনে যাওয়া এক বাংলাদেশি। তিনি লিখেছেন, অনেক আশা ও স্বপ্ন নিয়ে এ দেশে এসেছিলাম কেয়ার ওয়ার্কার ভিসায়। এখন দুবেলা খাওয়া আর একটা ছাদের নিচে থাকাটাই বড় স্বপ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে। পাঁচ মাস ধরে আমি মেইন অ্যাপ্লিকেন্ট, কিন্তু আমার কোনও কাজ নেই। হন্যে হয়ে রেস্টুরেন্ট, কন্সট্রাকশন, অ্যাগ্রিকালচার সাইটে কাজ খুঁজেছি, কিন্তু পাইনি। আমার স্ত্রী ডিপেনডেন্ট হিসেবে আসার পর শুধু এক মাস হাউজকিপিংয়ের জব করেছিলেন, এখন বেকার।

 

আর্থিক সংকটের কথা তুলে ধরে তিনি লেখেন, হাত প্রায় খালি। তাই গত মাস থেকে লন্ডনে এক আত্মীয়ের বাসায় আছি। এখন তারা এক সপ্তাহ সময় দিয়েছে—অন্য জায়গায় রুম ভাড়া নেওয়ার জন্য। এখন কোথায় যাবো, কী করবো, কিছুই আর মাথায় আসছে না। এক সপ্তাহ পর রাস্তায় থাকা ছাড়া আর উপায় নেই।

 

আকুতি জানিয়ে তিনি আরও লিখেছেন, যদি কোনো দয়ালু ভাই-বোন আমাদের কাউকে যেকোনো শহরে একটা কাজ দিয়ে হেল্প করতেন, সারাজীবন এই উপকারের কথা ভুলতাম না।

 

আর এ সু‌যোগকে পুঁজি ক‌রে বাংলাদেশি কমিউনি‌টির ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগু‌লো‌তে কাজ পেলেও ঘণ্টায় পাঁচ পাউন্ডও মজুরি দি‌চ্ছেন না মা‌লিকরা। রেস্টুরেন্টগু‌লোতে দি‌নে আট ঘণ্টার বেশি, সপ্তাহে ছয় দিন কাজ ক‌রে বেতন পা‌চ্ছেন মাত্র ১২০ পাউন্ড। এমন অন্তত দু‌টি ঘটনার কথা জানান বা‌র্মিংহা‌মে বসবাসরত সাংবা‌দিক আশফাক জু‌নেদ। তি‌নি বলেন, লন্ডনে বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠানগু‌লো‌তে ঘণ্টায় পাঁচ পাউন্ড বেতনেও মিলছে না কাজ। ফেসবুক গ্রুপগু‌লো‌তে কাজের জন্য হাহাকার। অনেকে যুক্তরাজ্যে আসার পর ছয় মাস কেটে গেলেও কাজ জোটা‌তে পারছেন না।

 

লুট‌নে বসবাসরত লিব‌ডেম পার্টির রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত মাহবুবুল করীম সু‌য়েদ ব‌লেন, দেশ‌টি‌তে অর্থনৈতিক মন্দার কারণে ব‌্যবসাগু‌লোর অবস্থা খারাপ। বাংলাদেশিসহ বিশেষত দক্ষিণ এ‌শীয় ব্যবসায়ীরা কর্মী‌কে ঘণ্টায় পাঁচ পাউন্ড করে ১২ ঘণ্টার মজুরি ৬০ পাউন্ড দিচ্ছেন। অর্ধেকের চে‌য়ে কম মজুরি পেলেও লন্ডনে একজনের জন্য ছোট একটা রুমের ভাড়া সর্বনিম্ন ৬০০ পাউন্ড। নতুন আসা বাংলাদেশিরা বেতন ও ঘর ভাড়ার ক্ষেত্রে জুলুমের শিকার হচ্ছেন।

 

বাংলাদেশের কয়েকটি শীর্ষ গণমাধ্যমে কাজ ক‌রে উচ্চশিক্ষার জন্য যুক্তরাজ্যে গেছেন রুম্পা রায়। তিনি বলেন, নতুন যারা আসছেন, তাদের থাকার জায়গা ও কাজ দেওয়া‌কে কেন্দ্র ক‌রে বাণিজ্য করছেন আমা‌দের একশ্রেণির মানুষ। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকায় বাসা ভাড়ার ক্ষেত্রে তৃতীয় পক্ষের কাছ থেকে ভাড়া নি‌তে হয় নতুন আসা বাংলাদেশিদের। এক‌টি রুমে পার্টিশন দি‌য়ে, গার্ডেনে রুম তুলে ভাড়া দিচ্ছেন তারা নতুন‌দের কাছে। দেশ থেকে যারা বিভিন্ন ভিসায় এসেছেন, তারা নানাভাবে প্রতারিত হচ্ছেন। দেখা যাচ্ছে, সরকার ঘো‌ষিত ন্যূনতম মজুরির অর্ধেক ঘণ্টায় পাঁচ পাউন্ডও বেতন দিচ্ছেন না দেশি নি‌য়োগদাতারা।

 

৪০ বছরের বেশি সময় ধ‌রে যুক্তরাজ্যে বসবাস করছেন শিক্ষাবিদ ড. রেণু লুৎফা। তিনি বলেন, আমাদের পূর্ব পুরুষরা যখন এ দেশে বসতি গড়েন, তখন তাদের কাছে কিছুই ছিল না। তারা ভাষা জানতেন না, গরমের কাপড় ছিল না, খাবার ছিল না, থাকার জায়গা ছিল না। তদুপরি তারা নিজেদের বসতি স্থাপন করেছেন। টিকে থাকার জন্য যা প্রয়োজন তা-ই করেছেন। অভিযোগ করার কোনও মাধ্যম ছিল না। নিজেরাই যখন যা পেয়েছেন তাতেই ঝাঁপিয়ে পড়েছেন। নিজেদের লড়াই নিজে করতে হবে।
বর্তমান প্রেক্ষাপট তুলে ধরে তিনি বলেন, এখন দেখি এরা শুধু কাজ নেই বলে হাত পাতে! পাশে অন্য দেশের নাগরিকদের দেখি বাগান পরিষ্কার করছে, কার্পেন্টারের কাজ করছেন, মিস্ত্রির কাজ করছেন—এক কথায় এমন কোনও কাজ নেই যে তারা করছেন না। সকালে এক কাজ তো রাতে আরেক কাজ। আমাদের শুধু অভিযোগ। রেস্টুরেন্টের কাজ, খাবার ফ্রি… তারপরও অভিযোগ বেতন বেশি না!

 

ঘর নিয়ে দুর্ভোগে বাংলাদেশিরা : যুক্তরাজ্যে জাতিগোষ্ঠী হি‌সে‌বে ব্রিটিশ-বাংলাদেশিরা সব‌চে‌য়ে ঘিঞ্জি পরি‌বে‌শে বসবাস করছেন। তাদের মধ্যে প্রায় দুই-পঞ্চমাংশ বাংলা‌দেশি খুবই সংকটময় পরিস্থিতিতে বাস করছেন। এটা সব ব্রিটিশ-এশিয়ানের চেয়ে উল্লেখযোগ্য হারে বে‌শি, যা ২৩ শতাংশ বলে এক সমীক্ষার ফলাফ‌লে উঠে এসেছে।
ব্রিটে‌নে আবাসন সমস্যা নতুন ঘটনা নয়। গ্যাস ও বিদ্যুতের মূল্য বে‌ড়ে‌ছে ক‌য়েক গুণ। মুদ্রাস্ফী‌তির কার‌ণে বাড়ির মর্টগে‌জের মা‌সিক কিস্তি দ্বিগুণ হ‌য়ে‌ছে অনেকের, জীবনযাপনের সব ধরনের ব্যয়ে নাজেহাল সবাই, তার ওপর আবাসিক সংকটের সমাধান না পাওয়ায় পরিবারের ভোগান্তি এখন চরমে। এছাড়া গত কয়েক বছ‌রে স্টু‌ডেন্ট ভিসা, ওয়ার্ক পার‌মিট ও কেয়ার ভিসায় আসা বাংলা‌দেশিরা পার কর‌ছেন আরও চরম দুঃসময়।

 

সম্প্রতি ওএনএস (অ‌ফিস ফর ন্যাশনাল স্ট্যাটিস্টিকস) এক জ‌রি‌পের ফল প্রকাশ করেছে। এতে দেখা গেছে, লন্ড‌নের কাউন্সিলগুলোয় বসবাসকারী বাংলা‌দেশিরা দেশ‌টির অন্য এথ‌নিক মাই‌নরি‌টি ক‌মিউ‌নি‌টির চে‌য়ে বেশি দুর্ভোগে আ‌ছেন। বছ‌রের পর বছর ধরে এ সমস্যা নি‌য়ে ভুগছেন ক‌য়েক লাখ ব্রিটিশ-বাংলা‌দেশি। চার-পাঁচ জ‌নের প‌রিবার নি‌য়ে অ‌নে‌কে চার বছ‌রের বে‌শি সময় ধ‌রে হো‌স্টেলের এক রু‌মে বসবাস কর‌ছেন। আবার প্রাপ্তবয়স্ক ছে‌লে-মে‌য়ে নি‌য়ে এক রু‌মে দিন পার করছেন অনেক মা-বাবা।

 

টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলে বসবাস করেন বাংলা‌দেশি নারী ইয়াসমিন বেগম। আড়াই বছর ধ‌রে নিজ কাউন্সিলের বাইরে এক রু‌মের ভেত‌রে দুই সন্তান নি‌য়ে বসবাস কর‌ছেন তিনি। তিনি ব‌লেন, এখানে নানা সমস্যায় জর্জরিত আমরা। ওয়াশরুম শেয়ার কর‌তে হয়, রু‌মে হি‌টিং ঠিকম‌তো চ‌লে না, দেয়াল স্যাঁতসেঁতে। আমার দুই সন্তান এক‌টি দোতলা খা‌টে ঘুমায়। মালামাল সব বাইরে মা‌সিক ভাড়ার স্টোরে‌জে রাখি। ক‌বে স্থায়ী ঘর পা‌বো, আদৌ পা‌বো কি না, তা জা‌নি না।
জরিপে আরও দেখা গেছে, সাধারণত কাউন্সিলের (বারা) ঘ‌রের জন্য পরিবারকে আবেদন করতে হয়। কিন্তু একটি ঘর পেতে অপেক্ষমাণ তালিকায় কেটে যায় ১০ বছর। তবু মিল‌ছে না সু‌যোগ। এছাড়া অনেকে হো‌স্টেলে বসবাস করেন। সেখানে রান্নার ব্যবস্থা নেই। আবার একটি ওয়াশরুম ব্যবহার কর‌তে হয় ১০ জন মিলে।
ব্রিটেনে প্রায় ৩৪ শতাংশ ব্রিটিশ-বাংলাদেশি সরকা‌রি সামাজিক আবাসন প্রকল্পে বসবাস করেন, যা ব্রিটিশ-ভারতীয়দের তুলনায় সাত গুণ বেশি। আর সামাজিক আবাসনে বাস করেন প্রায় ১৬ শতাংশ ব্রিটিশ-পাকিস্তানি।
ওএনএসের জ‌রিপ অনুসারে, যুক্তরাজ্যে ঘর ভাড়া সাত বছরের মধ্যে দ্রুত গতিতে বেড়েছে। সমীক্ষায় দেখা গে‌ছে, শ্বেতাঙ্গ ব্রিটিশ কর্মীদের তুলনায় ভারতীয় কর্মচারীদের আয় বেশি, যা প্রায় প্রতি ঘণ্টায় ১৭ দশ‌মিক ২৯ পাউন্ড। কিন্তু বাংলা‌দেশিরা ঘণ্টাপ্রতি আয় ক‌রেন মাত্র ১১ দশ‌মিক ৯০ পাউন্ড।

 

ব্রিটে‌নের বাংলাদেশি কমিউনি‌টির আবাসন ও মর্টগেজ পরামর্শক আব্দুল কা‌দির ব‌লেন, বে‌শিরভাগ বাংলা‌দেশি ব্রিটেনে কম বেতনে চাকরি ক‌রেন। তাই তা‌দের ওপর আবাসন সংক‌টের প্রভাব মারাত্মক। প্রাইভেট রে‌ন্টেড ঘ‌রের ক্ষে‌ত্রে ভাড়া ক‌য়েক গুণ বে‌শি।

 

টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের সা‌বেক ডেপু‌টি মেয়র কাউন্সিলর অহিদ আহমদ ব‌লেন, গ্যাস, পানি, বিদ্যুৎ ও কাউন্সিল টে‌ক্সের অব্যাহত বৃ‌দ্ধি জনজীবনকে অসহনীয় ক‌রে তু‌লেছে। আবাসন সংকট মানু‌ষের শারী‌রিক ও মান‌সিক স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত ক‌রছে।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo