শনিবার, ১৩ Jul ২০২৪, ০১:৩৮ অপরাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
সেই ১৪ ট্রাক চোরাই চিনির নিলাম আজ বিপৎসীমার ওপরে সুরমার পানি, ভোগান্তিতে লক্ষাধিক মানুষ বেড়েছে ধলাই নদীর পানি, ঝুঁকিপূর্ণ প্রতিরক্ষা বাঁধ কর্মবিরতিতে শাবিতে অচলাবস্থা তৃতীয় দফায় বন্যার কবলে সিলেট অঞ্চল, পানিবন্দি কয়েক লাখ মানুষ মাধবপুরে কবরস্থান দখল করে কঙ্কাল তুলে সবজি চাষের অভিযোগ হবিগঞ্জে নাগালের বাইরে সবজির দাম শ্মশানঘাটে ২ শিশুর লাশ সমাহিত করতে বাধা, নদীতে ভাসিয়ে দিল পরিবার হবিগঞ্জে ছোট ভাইয়ের হাতে বড় বোন খুন ভারতে ধর্মীয় অনুষ্ঠানে পদদলিত হয়ে নিহত ১২০ দোয়ারাবাজারে নৌকা ডুবে শিশুসহ নিখোঁজ ৩ সিলেটে মাদকসহ তিন যুবক আটক ধোপাগুলে ট্রাক-কার সংঘর্ষে স্বামী-স্ত্রী নিহত চাঁদাবাজি করতে গিয়ে যুবলীগ নেতা আটক হবিগঞ্জে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু শেখ হাসিনা অসহায় মানুষের পরম বন্ধু: শফিক চৌধুরী সিলেট-সুনামগঞ্জে ফের বন্যার শঙ্কা হবিগঞ্জে মাকে হত্যার দায়ে ছেলের মৃত্যুদণ্ড বিদেশি মদসহ দুইজন গ্রেপ্তার দক্ষিণ সুরমায় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ জকিগঞ্জে বিপুল পরিমাণ ভারতীয় মদসহ একজন গ্রেপ্তার বিশ্বম্ভরপুর থানায় ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার উদ্বোধন হবিগঞ্জে বন্যা পরবর্তী সময়ে খাদ্য সংকটে শিশুরা তারেককে দেশে ফেরাতে জোর তৎপরতা চলছে: প্রধানমন্ত্রী ঈদযাত্রায় ৩০৯টি সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪৫৮ গাজায় নিখোঁজ ২০ হাজারের বেশি শিশু নগরীতে পুনর্বাসন কেন্দ্রে তিন কিশোরীর আত্মহত্যার চেষ্টা শায়েস্তাগঞ্জে চিনি বোঝাই ট্রাকের চাপায় পুলিশ কনস্টেবল নিহত, আটক ৩ মধ্যনগরে সেই চেয়ারম্যানসহ ২০ জনের বিরুদ্ধে মামলা বন্যার পানি নেমে গেলেও বিপাকে আশ্রয়হীনরা
বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে ৫৬০১ হেক্টর জমির ফসল

বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে ৫৬০১ হেক্টর জমির ফসল

 

নিজস্ব প্রতিবেদক :: উজান থেকে নেমে আসা ঢল ও গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে সিলেটের নদ-নদীগুলোর পানি বাড়ছে। জেলার পাঁচটি উপজেলায় প্লাবিত হয়েছে শতাধিক গ্রাম। বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে জেলার ৫ হাজার ৬০১ হেক্টর জমির ফসল। এমন পরিস্থিতিতে বন্ধ রাখা হয়েছে সিলেটের সব পর্যটন কেন্দ্র।

 

সিলেটের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক মোহাম্মদ আনিছুজ্জামান জানান, গোয়াইনঘাট, কোম্পানীগঞ্জ, জৈন্তাপুর, কানাইঘাট ও জকিগঞ্জে মোট পাঁচ হাজার ৬০১ হেক্টর আউশ ধান, আউশ বীজতলা ও সবজিক্ষেত তলিয়ে গেছে। তবে এখনই ক্ষয়ক্ষতি নির্ধারণ করা যাচ্ছে না।

 

গোয়াইনঘাট, কোম্পানীগঞ্জ, জৈন্তাপুর, কানাইঘাট ও জকিগঞ্জ উপজেলা বেশি বন্যাকবলিত হয়েছে। বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে সিলেট-তামাবিল সড়ক। জেলা সদরের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ অনেকটা বন্ধ হয়ে পড়েছে গোয়াইনঘাট উপজেলা সদরের সঙ্গে। সিলেট নগরীর বেশকিছু এলাকায়ও বন্যার পানি ঢুকে পড়েছে। শুরুতে নগরীর মাছিমপুর, মেন্দিবাগ ও আলমপুর বন্যাকবলিত হয়ে পড়ে। ঝুঁকিতে আছে নগরীর কালিঘাট, শেখঘাট, কাজির বাজারসহ বাণিজ্যিক এলাকাগুলো।

 

সিলেট আবহাওয়া অফিসের সহকারী আবহাওয়াবিদ শাহ মোহাম্মদ সজীব হোসেন জানান, মে মাসে সিলেটে বৃষ্টিপাত হয়েছে দ্বিগুণেরও বেশি। গত বছরের মে মাসে ৩৩০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছিল। এবার মে মাসে হয়েছে ৭০৫ মিলিমিটার। এর আগে ২০২২ সালের প্রলয়ংকরী বন্যার সময়ে মে মাসে সিলেটে ৮৩৯ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছিল।

 

পাউবো সিলেটের নির্বাহী প্রকৌশলী দীপক রঞ্জন দাশ জানান, সুরমা, কুশিয়ারা, সারি ও গোয়াইন নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে এবং অন্যান্য নদ-নদীর পানিও বাড়ছে।

 

গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদুল ইসলাম জানান, উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের প্রায় ৪২ হাজার ৯০০টি পরিবার দুর্যোগকবলিত। প্রায় আড়াই লাখ মানুষ দুর্ভোগে। এর মধ্যে বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত ২ হাজার ৩৫৬ জন আশ্রয় নিয়েছেন।
তিনি জানান, মানুষের পাশাপাশি ৬৪৫টি গবাদিপশুর আশ্রয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। উপজেলায় ১০টি মেডিকেল টিম চালু করা হয়েছে। কৃষিজমি তলিয়ে গেছে ১ হাজার ৬৬০ হেক্টর।

 

এদিকে বন্যাকবলিত জৈন্তাপুর পরিদর্শন করেছেন সিলেটের জেলা প্রশাসক শেখ রাসেল হাসান ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজা আক্তার সিমুল। এ সময় সঙ্গে ছিলেন জৈন্তাপুর উপজেলা চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে সালিক রুমাইয়া, সহকারী কমিশনার ভূমি ফাতেমা তুজ জোহরা সানিয়া ও মডেল থানার ওসি তাজুল ইসলাম।
জৈন্তাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে সালিক রুমাইয়া জানান, সেনাবাহিনী, বিজিবি ও ফায়ার সার্ভিস পুলিশ উদ্ধার কাজ করছে। আমি সার্বক্ষণিকভাবে বন্যা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি।

 

সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মোবারক হোসাইন জানান, বন্যা পরিস্থিতি গোয়াইনঘাট ও জৈন্তাপুর উপজেলায় সবচেয়ে বেশি খারাপ। সেখানে স্থানীয়দের সহযোগিতায় উদ্ধার অভিযান চালাচ্ছে উপজেলা প্রশাসন।

 

সিলেটের জেলা প্রশাসক শেখ রাসেল হাসান জানান, পানিবন্দি মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্রে ও নিরাপদে সরিয়ে আনা হয়েছে। জেলার পাঁচটি উপজেলায় জরুরি ভিত্তিতে প্রায় ৪৭০টি আশ্রয়কেন্দ্র চালু করা হয়েছে। প্রয়োজনে তা বাড়ানো হবে। জেলায় জরুরি ভিত্তিতে ৪৭০টি আশ্রয়কেন্দ্র চালু করা হয়েছে। এর মধ্যে গোয়াইনঘাটে ৫৬টি, জৈন্তাপুরে ৪৮টি, কানাইঘাটে ১৮টি, কোম্পানীগঞ্জে ৩৫টি ও জকিগঞ্জে ৫৮টি আশ্রয়কেন্দ্র রয়েছে। বাকি আশ্রয়কেন্দ্রগুলো অন্যান্য উপজেলায় রয়েছে।

 

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo