সোমবার, ২৪ Jun ২০২৪, ০৮:৫৬ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
কর পরিশোধ করা সকলের দায়িত্ব: সিসিক মেয়র দোয়ারাবাজার সীমান্তে ১১ লাখ টাকার ভারতীয় কসমেটিকস ও নাসির বিড়ি জব্দ মা-বাবার উপস্থিতিতে শপথ নিলেন সাদাত মান্নান অভি গোয়াইনঘাটে প্রায় ১৯ লাখ টাকার চোরাই চিনি জব্দ সিলেটের নতুন পুলিশ সুপার আব্দুল মান্নান জকিগঞ্জে ছেলে হত্যাকাণ্ডে বাবা গ্রেপ্তার কেউ ত্রাণ সহায়তা থেকে বাদ পড়বে না: সিসিক মেয়র ঈদের ছুটিতে পর্যটকশূন্য মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত সিলেটে বন্যায় ১১ হাজার ৭০৭ হেক্টর জমির ফসল প্লাবিত সিলেটে ৩৯২ বস্তা চোরাই চিনি জব্দ, আটক ১ বন্যার পানি নামলেও রয়ে গেছে ভোগান্তি সিলেট ও সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপারকে বদলি সিলেটে বিপুল পরিমাণ ভারতীয় আতশবাজি উদ্ধার শর্তসাপেক্ষে খুললো সিলেটের পর্যটনকেন্দ্র এপিএ বাস্তবায়নে সারা দেশের মধ্যে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছে শাবিপ্রবি জুড়ীতে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে যুবককে হত্যার অভিযোগ, গ্রেপ্তার ৪ পাঁচ বছরেও শেষ হয়নি নির্মাণ, ক্ষুব্ধ মুসল্লিরা সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে ফি বাড়ল তিনগুণের বেশি বিশ্বম্ভরপুরে সীমান্তে ১৫ লাখ টাকার চিনি জব্দ বাঙালির সব অর্জনেই আওয়ামী লীগ জড়িত: প্রধানমন্ত্রী সিলেট বিভাগে টানা তিনদিন বৃষ্টির শঙ্কা শান্তিগঞ্জে যুবককে কুপিয়ে হত্যা করলেন ইউপি চেয়ারম্যানের ছেলে ভারত বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেশী, বিশ্বস্ত বন্ধু: শেখ হাসিনা দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে নয়াদিল্লি পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী প্রতিনিয়ত বানভাসি মানুষের খোঁজখবর রাখছেন: শফিক চৌধুরী সিলেটে বন্যায় ৭ লাখ ৭২ হাজার শিশু ক্ষতিগ্রস্ত বাকিতে বিড়ি না দেওয়ায় ছুরিকাঘাতে যুবককে হত্যা বড়লেখায় বন্যার পানিতে ডুবে স্কুলছাত্রীর মৃত্যু সিলেট বিভাগের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত গোয়াইনঘাট থেকে ১৪৩ বস্তা চিনিসহ আটক ১
গোলাপগঞ্জে হুমকির মুখে পাহাড়-টিলা

গোলাপগঞ্জে হুমকির মুখে পাহাড়-টিলা

 

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি :: গোলাপগঞ্জ উপজেলায় প্রকাশ্যে চলছে টিলা কাটার মচ্ছব। পাহাড়ি বনের পুরোনো টিলাগুলো কেটে নেওয়া হচ্ছে। নিয়ম রক্ষার অভিযানে শ্রমিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হলেও মূলহোতারা থেকে যাচ্ছে নাগালের বাইরে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে অভিযানের খবর আগাম পেয়ে সটকে পড়ে তারা। প্রভাবশালী চক্র এ কাজে সম্পৃক্ত থাকায় কথা বলতে সাহস পাচ্ছেন না এলাকার মানুষ।

 

 

উপজেলার ধারাবহর এলাকায় টিলা কাটার প্রবণতা বেড়েছে ব্যাপক হারে। বনের ভেতরের নির্জন এলাকা কিংবা পথের পাশে থাকা টিলা কিছুই ছাড় দিচ্ছে না চক্রের সদস্যরা। এ এলাকার প্রায় প্রতিটি পাহাড় ও টিলা রয়েছে হুমকির মুখে। ব্যক্তি মালিকানাধীন এবং একটি প্রতিষ্ঠানের টিলা থেকেও অনুমোদন ছাড়া কাটা হচ্ছে মাটি। যদিও যেকোনো ধরনের পাহাড়ি টিলা কাটার ক্ষেত্রে ভূমি অধিদপ্তরের অনুমতির বিধান রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ব্যারিস্টার তাজউদ্দিনের টিলা ও সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের টিলা।

 

স্থানীয়রা জানান, এ এলাকার টিলা কাটা বন্ধে দায়িত্বশীলদের কোনো পদক্ষেপ দৃশ্যমান নয়। পরিবেশ অধিদপ্তর ও জেলা প্রশাসনের উদাসীনতায় ক্রমেই বাড়ছে টিলার মাটি কেটে নেওয়ার প্রবণতা। এ কাজে আগের চেয়ে আরও বেশি বেপরোয়া হয়ে উঠেছে কয়েকটি সংঘবদ্ধ চক্র। পাহাড়-টিলা কেটে মাটি বিক্রি করে প্রতিদিন অবৈধভাবে লাখ লাখ টাকা উপার্জন করছে তারা। আদালতের নিষেধাজ্ঞা ও পরিবেশ আইনকে উপেক্ষা করে সুকৌশলে পাহাড় কেটে উজাড় করছে চক্রগুলো। প্রায় প্রতিনিয়ত আমুড়া ইউনিয়নের ধারাবহরে বারিস্টার তাজউদ্দিনের টিলা ও সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের টিলা কাটা চলছে।
বেশ কিছু দিন ধরে লক্ষ্মীপাশা ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার উঁচু টিলা কেটে স্থানীয় বেশকিছু নিচু জমি ভরাট করছেন তাজউদ্দিন নামে এক প্রবাসী। এমনটাই জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তবে তাজউদ্দিন দেশের বাইরে থাকায় এ ব্যাপারে তাঁর বক্তব্য পাওয়া যায়নি। ওই ব্যক্তি একাধিক পাহাড় কাটার মামলার অভিযুক্ত আসামি।

 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি জানান, ওই প্রভাবশালী ব্যক্তি দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে পাহাড় ও টিলা কেটে মাটি বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করে আসছেন। এ কাজে তাঁকে সর্বাত্মক সহায়তা দিচ্ছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ প্রশাসনের বেশ কয়েকজন ব্যক্তি; যার কারণে তাঁর বিরুদ্ধে কেউ কথা বলার সাহস পায় না। প্রশাসন ব্যবস্থা নেওয়ার নামে অভিযান চালায়। সেই খবর আগাম পেয়ে নিরাপদে গর্তে লুকায় সিন্ডিকেটের মাথারা।

 

স্থানীয়রা জানান, ধারাবহর এলাকার ব্যারিস্টার তাজউদ্দিনের টিলায় উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা গত দুই মাস আগে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে পঞ্চাশ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন। এরপরও টিলা কাটা বন্ধ হয়নি। বর্তমানে প্রকাশ্যে চলছে টিলার মাটি কাটা। টিলার গায়ে রয়েছে তরতাজা ক্ষত। অজ্ঞাত কারণে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বা পরিবেশ অধিদপ্তরের কোনো অভিযান চালানো হচ্ছে না।

 

এছাড়া ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের বিএনকে স্কুলসংলগ্ন হক মিয়ার মোরা নামক স্থানে টিলা কেটে সাবাড় করছে স্থানীয় একটি ভূমিখেকো চক্র। এরা দিনে টিলা কেটে মাটি জড়ো করে, রাতে ট্রাক্টর দিয়ে মাটি বহন করে। এভাবে ধীরে ধীরে নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে উপজেলার অর্ধশতাধিক টিলা।

 

পরিবেশবিদরা বলছেন, উচ্চ আদালতের নির্দেশনা ও পরিবেশ আইন সঠিকভাবে প্রয়োগ করলে পাহাড়-টিলা কাটা অনেকটাই বন্ধ হতো। বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) সিলেট শাখার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কীম জানান, গোলাপগঞ্জ উপজেলায় পাহাড়-টিলা কাটা সম্প্রতি ব্যাপক বেড়েছে। কিছু প্রভাবশালী মানুষ নিজেদের স্বার্থ উদ্ধারে বিকৃতভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করছে প্রকৃতিকে। তিনি প্রশাসনের কাছে পরিবেশ ধ্বংসে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান।

 

গোলাপগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) অভিজিত চৌধুরী জানান, যখনই টিলা কাটার খবর পাচ্ছেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। পাহাড় বা টিলা কাটায় জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলা করার দায়িত্ব পরিবেশ অধিদপ্তরের। এ ব্যাপারে তিনি পরিবেশ অধিদপ্তরের সঙ্গে কথা বলবেন বলেও জানান।

 

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo