সোমবার, ২৪ Jun ২০২৪, ০৯:১৬ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
কর পরিশোধ করা সকলের দায়িত্ব: সিসিক মেয়র দোয়ারাবাজার সীমান্তে ১১ লাখ টাকার ভারতীয় কসমেটিকস ও নাসির বিড়ি জব্দ মা-বাবার উপস্থিতিতে শপথ নিলেন সাদাত মান্নান অভি গোয়াইনঘাটে প্রায় ১৯ লাখ টাকার চোরাই চিনি জব্দ সিলেটের নতুন পুলিশ সুপার আব্দুল মান্নান জকিগঞ্জে ছেলে হত্যাকাণ্ডে বাবা গ্রেপ্তার কেউ ত্রাণ সহায়তা থেকে বাদ পড়বে না: সিসিক মেয়র ঈদের ছুটিতে পর্যটকশূন্য মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত সিলেটে বন্যায় ১১ হাজার ৭০৭ হেক্টর জমির ফসল প্লাবিত সিলেটে ৩৯২ বস্তা চোরাই চিনি জব্দ, আটক ১ বন্যার পানি নামলেও রয়ে গেছে ভোগান্তি সিলেট ও সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপারকে বদলি সিলেটে বিপুল পরিমাণ ভারতীয় আতশবাজি উদ্ধার শর্তসাপেক্ষে খুললো সিলেটের পর্যটনকেন্দ্র এপিএ বাস্তবায়নে সারা দেশের মধ্যে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছে শাবিপ্রবি জুড়ীতে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে যুবককে হত্যার অভিযোগ, গ্রেপ্তার ৪ পাঁচ বছরেও শেষ হয়নি নির্মাণ, ক্ষুব্ধ মুসল্লিরা সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে ফি বাড়ল তিনগুণের বেশি বিশ্বম্ভরপুরে সীমান্তে ১৫ লাখ টাকার চিনি জব্দ বাঙালির সব অর্জনেই আওয়ামী লীগ জড়িত: প্রধানমন্ত্রী সিলেট বিভাগে টানা তিনদিন বৃষ্টির শঙ্কা শান্তিগঞ্জে যুবককে কুপিয়ে হত্যা করলেন ইউপি চেয়ারম্যানের ছেলে ভারত বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেশী, বিশ্বস্ত বন্ধু: শেখ হাসিনা দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে নয়াদিল্লি পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী প্রতিনিয়ত বানভাসি মানুষের খোঁজখবর রাখছেন: শফিক চৌধুরী সিলেটে বন্যায় ৭ লাখ ৭২ হাজার শিশু ক্ষতিগ্রস্ত বাকিতে বিড়ি না দেওয়ায় ছুরিকাঘাতে যুবককে হত্যা বড়লেখায় বন্যার পানিতে ডুবে স্কুলছাত্রীর মৃত্যু সিলেট বিভাগের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত গোয়াইনঘাট থেকে ১৪৩ বস্তা চিনিসহ আটক ১
ঘূর্ণিঝড় রিমালে ১০ জনের মৃত্যু, দেড় লাখ ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত

ঘূর্ণিঝড় রিমালে ১০ জনের মৃত্যু, দেড় লাখ ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত

 

জাগ্রত সিলেট ডেস্ক :: প্রবল ঘূর্ণিঝড় রিমালের আঘাতে ছয় জেলায় ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে আংশিক এবং সম্পূর্ণ মিলে এক লাখ ৫০ হাজার ৪৭৫টি ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে।

 

সোমবার সচিবালয়ে ঘূর্ণিঝড় রিমাল পরবর্তী পরিস্থিতি নিয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী মো. মহিববুর রহমান এ কথা জানান।

 

তিনি বলেন, এ পর্যন্ত প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী খুলনা, সাতক্ষীরা, বরিশাল, পটুয়াখালী, ভোলা ও চট্টগ্রামে মোট ১০ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

 

ঘূর্ণিঝড়ে মোট ১৯টি জেলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এর মধ্যে রয়েছে খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, ঝালকাঠি, বরিশাল, পটুয়াখালী, পিরোজপুর, বরগুনা, ভোলা, ফেনী, কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষীপুর, চাদপুর, নড়াইল, গোপালগঞ্জ, শরীয়তপুর এবং যশোর। ক্ষতিগ্রস্ত উপজেলার সংখ্যা ১০৭টি এবং ইউনিয়ন ও পৌরসভার সংখ্যা ৯১৪টি।
মো. মহিববুর রহমান বলেন, ঘূর্ণিঝড়ে ৩৭ লাখ ৫৮ হাজার ৯৬ জন মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। সম্পূর্ণভাবে বিধ্বস্ত হয়েছে ৩৫ হাজার ৪৮৩টি ঘরবাড়ি এবং আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে এক লাখ ১৪ হাজার ৯৯২টি।

 

ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ঘূর্ণিঝড় সতর্কবার্তার প্রেক্ষিতে উপকূলীয় এলাকাগুলোতে নয় হাজার ৪২৪টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। এসব আশ্রয়কেন্দ্র ও স্থানীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আট লাখের বেশি লোক আশ্রয় নিয়েছেন। গরু-মহিষ, ছাগল-ভেড়াসহ আশ্রিত পশুর সংখ্যা ৫২ হাজার ১৪৬টি।

 

খুলনায় দুর্যোগকবলিত সাড়ে ৪ লাখ মানুষ : ঘূর্ণিঝড় রিমালের আঘাতে খুলনা ও বাগেরহাটে ৩০ হাজার ঘরবাড়ি সম্পূর্ণ ও ৯১ হাজার ঘর আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। খুলনার ৪ লাখ ৫২ হাজার লোক দুর্যোগকবলিত হয়েছে। খুলনা ও বাগেরহাটে ২ লক্ষাধিক মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে রয়েছেন।

 

খুলনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. নাজমুল হুসাইন খান বলেন, ‘রবিবার রাতে আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান নেওয়ার পর সোমবার সকালে বটিয়াঘাটার বাসায় ফিরে যান লাল চাঁদ মোড়ল (৩৬)। এরপর তিনি গাছচাপা পড়ে মারা যান। এখনও খুলনার দাকোপ, কয়রা, পাইকগাছা ও বটিয়াঘাটায় ১ লাখ ৩৪ হাজার মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে রয়েছেন। খুলনার ৪ লাখ ৫২ হাজার মানুষ দুর্যোগকবলিত হয়েছেন। ২০ হাজার ৭০০ ঘর সম্পূর্ণ ও ৫৬ হাজার ঘর আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’

 

বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খালিদ হোসেন বলেন, ‘জেলার ১০ হাজার ঘর সম্পূর্ণ ও ৩৫ হাজার আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। মোড়েলগঞ্জ পৌরসভা, জয়মনির ঘোল ও জিওধরা পানিতে প্লাবিত হয়েছে। তিনটি স্থানে বেড়িবাঁধ ভেঙে গেছে। মোংলা, শরণখোলা, মোড়েলগঞ্জ ও বাগেরহাট সদরের ৭০ হাজার মানুষ এখনও আশ্রয়কেন্দ্রে রয়েছেন। রামপাল ও মোংলায় চিংড়িঘের ভেসে গেছে।’

 

সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক মো. হুমায়ুন কবির বলেন, ‘সাতক্ষীরায় কোথাও বাঁধ ভাঙেনি। আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান নেয় ৪০ হাজার মানুষ। ৮০০ কাঁচাঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’

 

পানি উন্নয়ন বোর্ড খুলনার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আশরাফুল আলম বলেন, ‘রিমালের কবলে পড়ে খুলনায় ৩৮টি পয়েন্টে বেড়িবাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কয়রা ও দাকোপের ৪টি পয়েন্ট ভেঙেছে। এসব পয়েন্ট হলো দাকোপের বটবুনিয়া, খলিশা ও কামিনিবাসিয়া এবং কয়রার দশহালিয়া। খুলনায় সাড়ে ৪ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’

 

কক্সবাজারে অর্ধশত গ্রাম প্লাবিত, পাহাড়ধসের শঙ্কা : ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে কক্সবাজারে বজ্রবৃষ্টি ও দমকা হাওয়া বয়ে গেছে। এ সময় ঝোড়ো হাওয়ায় জেলার কিছু কিছু এলাকায় ভেঙে গেছে গাছপালা। সাগরে স্বাভাবিকের চেয়ে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় জোয়ারের পানিতে অর্ধশত গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

 

সোমবার বেলা ১১টার পর থেকে থেমে থেমে চলা এ বর্ষণের সঙ্গে ঝোড়ো হাওয়া এবং বজ্রবৃষ্টি হয়েছে। যদিও কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরে ৯ নম্বর মহাবিপদ সংকেত নামিয়ে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কসংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। তবে ভারী বর্ষণের প্রভাবে কক্সবাজার ও আশপাশের পাহাড়ি অঞ্চলের কোথাও কোথাও ভূমিধসের আশঙ্কা রয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

 

কক্সবাজার আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়াবিদ আব্দুল হান্নান জানিয়েছেন, গত ২৪ ঘণ্টায় কক্সবাজারে ৯৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। আরও দুই-তিন দিন একই ধরনের বৃষ্টি অব্যাহত থাকবে। ফলে পাহাড়ধসের আশঙ্কা রয়েছে। সাগরের পানি স্বাভাবিক অবস্থার চেয়ে এখনও ২ ফুট উচ্চতায় রয়েছে। ফলে সাগরবর্তী এলাকায় জোয়ারের পানি প্রবেশ করবে।

 

বৃষ্টি এবং জোয়ারের পানিতে কক্সবাজারের অন্তত অর্ধশত গ্রাম প্লাবিত হওয়ার তথ্য জানিয়েছেন স্থানীয় লোকজন। এর মধ্যে কক্সবাজার পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের নাজিরাটেক, কুতুবদিয়াপাড়া, সমিতিপাড়া, মোস্তাকপাড়া, ফদনার ডেইল, নুনিয়ারছড়া, মহেশখালী উপজেলার ধলাঘাটা ও মাতারবাড়ি ইউনিয়নের অধিকাংশ এলাকা এবং সেন্টমার্টিন দ্বীপের কিছু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এসব উপকূলের লোকজন আশ্রয়কেন্দ্রে রয়েছেন। তাদের রান্না করা খাবার বিতরণ করেছে প্রশাসন।

 

এদিকে ভূমিধসের আশঙ্কায় পাহাড়ে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারীদের নিরাপদ আশ্রয়ে নিতে প্রচার চালাচ্ছে জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন ও পৌরসভা। কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মুহম্মদ শাহিন ইমরান জানিয়েছেন, পাহাড়ে ঝুঁকিপূর্ণদের নিরাপদ আশ্রয়ে নিতে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও জনপ্রতিনিধিরা কাজ করছেন। সহজে নিরাপদ আশ্রয় না নিলে জোরপূর্বক সরানো হবে। ইতোমধ্যে জেলার উপকূলীয় অঞ্চলের সাইক্লোন শেল্টারে আশ্রয় নেওয়া লোকজন নিজ নিজ বাড়িতে ফেরত গেছেন। তবে ঘূর্ণিঝড়ের কারণে কী পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা নিরূপণ করা হচ্ছে।

 

বিদ্যুৎহীন ১ কোটি ৫৫ লাখ পরিবার : ঘূর্ণিঝড় রিমালের তাণ্ডবের সময় ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে দেশের উপকূলের বিভিন্ন এলাকায় ১ কোটি ৫৫ লাখ গ্রাহকের বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়েছে। ফলে অনেক এলাকা ১৬ থেকে ১৭ ঘণ্টা যাবত বিদ্যুৎবিহীন রয়েছে। সোমবার এ তথ্য জানিয়েছে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি।

 

পল্লী বিদ্যুতের কর্মকর্তারা বলছেন, উপকূলীয় কয়েকটি জেলার সাগর তীরবর্তী উপজেলাগুলো স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি উচ্চতার জোয়ারে তলিয়ে গেছে। এই পরিস্থিতিতে বিদ্যুতের লাইন চালু থাকলে জানমালের ক্ষতি হতে পারে। আবার বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রগুলো পানির নিচে তলিয়ে গেলে দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতি হতে পারে, যা মেরামত করতে অন্তত ৭ দিন সময় প্রয়োজন। এসব দিক বিবেচনায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়েছে।

 

বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের (আরইবি) পরিচালক (কারিগরি) মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে দুর্ঘটনা এড়াতে সোমবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ১ কোটি ৫৫ লাখ গ্রাহকের বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়। ঝড়ের তাণ্ডব কমে যাওয়ার পর দ্রুত বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করে দিতে আমাদের কর্মীরা প্রস্তুত রয়েছেন। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে কী পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, তার প্রকৃত চিত্র এখনো জানা যায়নি।

 

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo