সোমবার, ২৪ Jun ২০২৪, ১০:০০ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
কর পরিশোধ করা সকলের দায়িত্ব: সিসিক মেয়র দোয়ারাবাজার সীমান্তে ১১ লাখ টাকার ভারতীয় কসমেটিকস ও নাসির বিড়ি জব্দ মা-বাবার উপস্থিতিতে শপথ নিলেন সাদাত মান্নান অভি গোয়াইনঘাটে প্রায় ১৯ লাখ টাকার চোরাই চিনি জব্দ সিলেটের নতুন পুলিশ সুপার আব্দুল মান্নান জকিগঞ্জে ছেলে হত্যাকাণ্ডে বাবা গ্রেপ্তার কেউ ত্রাণ সহায়তা থেকে বাদ পড়বে না: সিসিক মেয়র ঈদের ছুটিতে পর্যটকশূন্য মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত সিলেটে বন্যায় ১১ হাজার ৭০৭ হেক্টর জমির ফসল প্লাবিত সিলেটে ৩৯২ বস্তা চোরাই চিনি জব্দ, আটক ১ বন্যার পানি নামলেও রয়ে গেছে ভোগান্তি সিলেট ও সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপারকে বদলি সিলেটে বিপুল পরিমাণ ভারতীয় আতশবাজি উদ্ধার শর্তসাপেক্ষে খুললো সিলেটের পর্যটনকেন্দ্র এপিএ বাস্তবায়নে সারা দেশের মধ্যে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছে শাবিপ্রবি জুড়ীতে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে যুবককে হত্যার অভিযোগ, গ্রেপ্তার ৪ পাঁচ বছরেও শেষ হয়নি নির্মাণ, ক্ষুব্ধ মুসল্লিরা সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে ফি বাড়ল তিনগুণের বেশি বিশ্বম্ভরপুরে সীমান্তে ১৫ লাখ টাকার চিনি জব্দ বাঙালির সব অর্জনেই আওয়ামী লীগ জড়িত: প্রধানমন্ত্রী সিলেট বিভাগে টানা তিনদিন বৃষ্টির শঙ্কা শান্তিগঞ্জে যুবককে কুপিয়ে হত্যা করলেন ইউপি চেয়ারম্যানের ছেলে ভারত বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেশী, বিশ্বস্ত বন্ধু: শেখ হাসিনা দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে নয়াদিল্লি পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী প্রতিনিয়ত বানভাসি মানুষের খোঁজখবর রাখছেন: শফিক চৌধুরী সিলেটে বন্যায় ৭ লাখ ৭২ হাজার শিশু ক্ষতিগ্রস্ত বাকিতে বিড়ি না দেওয়ায় ছুরিকাঘাতে যুবককে হত্যা বড়লেখায় বন্যার পানিতে ডুবে স্কুলছাত্রীর মৃত্যু সিলেট বিভাগের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত গোয়াইনঘাট থেকে ১৪৩ বস্তা চিনিসহ আটক ১
শিরশ্ছেদের আতঙ্কে সীমান্তে হাজির ৪৫ হাজার রোহিঙ্গা

শিরশ্ছেদের আতঙ্কে সীমান্তে হাজির ৪৫ হাজার রোহিঙ্গা

 

জাগ্রত সিলেট ডেস্ক :: মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে আবারও তুঙ্গে উঠেছে সংঘর্ষ, পাওয়া গেছে শিরশ্ছেদ, হত্যাকাণ্ড ও ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়ার খবর। এমন ভয়াল পরিস্থিতি এড়াতে আরও ৪৫ হাজার রোহিঙ্গা পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছে বাংলাদেশের সীমান্তের কাছে, জাতিসংঘের বরাত দিয়ে জানিয়েছে আল জাজিরা।

 

গত বছরের নভেম্বরে জান্তা সরকারের বাহিনীর ওপর হামলা শুরু করে রাখাইন রাজ্যের আরাকান আর্মি বিদ্রোহীরা। এই দুই পক্ষের গোলাগুলির মাঝে পড়ে গেছে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গারা। আরাকান আর্মি জানিয়েছে, ওই রাজ্যের আদিবাসী রাখাইন জনগণের অধিকার রক্ষায় যুদ্ধ করছে তারা।

 

বর্তমান রাখাইন রাজ্যে বাস করে প্রায় ছয় লাখ রোহিঙ্গা। ২০১৭ সালে জান্তা সরকারের অত্যাচার এড়াতে প্রথম মিয়ানমার ছেড়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয় প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গা।

 

সম্প্রতি মিয়ানমারের বুথিদং এবং মংদো শহর ছেড়ে পালিয়েছে আরও হাজার হাজার রোহিঙ্গা, জাতিসংঘের মানবাধিকার সংক্রান্ত দপ্তরের মুখপাত্র এলিজাবেথ থ্রসেল জানান। তিনি সাংবাদিকদের জানান, নিরাপত্তার খোঁজে বাংলাদেশের সীমান্তের কাছে নাফ নদীর পাশে এসে আশ্রয় নিয়েছে প্রায় ৪৫ হাজার রোহিঙ্গা।

 

মিয়ানমারের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিরাপত্তা ও আশ্রয় দিতে বাংলাদেশ ও অন্যান্য দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার হাইকমিশনার ভলকার টার্ক। তবে বাংলাদেশে আল জাজিরার প্রতিনিধি তানভির চৌধুরী জানিয়েছেন, ইতিমধ্যেই দশ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থী রয়েছে বাংলাদেশে, এ কারণে সরকার নতুন করে আরও রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশে রাজি নয়। ফলে সাম্প্রতিক এই শরণার্থীরা মিয়ানমার থেকে সীমান্ত পার হয়ে বাংলাদেশ আসতে পারছে না।

 

শিরশ্ছেদের আতঙ্ক : মিয়ানমারে জাতিসংঘের মানবাধিকার সংক্রান্ত দপ্তরের প্রধান জেমস রডেহেভার জানিয়েছেন, রাখাইনে ভয়াবহ পরিস্থিতি থেকে পালিয়ে যাচ্ছে রোহিঙ্গারা। তার দলের সংগ্রহ করা জবানবন্দী, স্যাটেলাইট ইমেজ, ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহ করার ছবি ও ভিডিও থেকে দেখা যায়, বুথিদং শহরটি প্রায় পুরোটাই পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ওই শহর থেকে জান্তা সরকারের সেনা সরে যাওয়ার পর ১৭ মে থেকে শহরটি পোড়ানো শুরু হয়। বর্তমানে তা আরাকান আর্মির দখলে।

 

 

শহরটি থেকে পালিয়ে আসার সময়ে সেখানে ডজনকে ডজন মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখেছেন বলে দাবি করেন এক প্রত্যক্ষদর্শী। আরেকজন জানান, পালিয়ে মংদো শহরে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাদের বাধা দেয় আরাকান আর্মি। এমনকি তাদের থেকে বিদ্রোহীরা চাঁদা নেয় বলেও জানা গেছে।

 

রডেহেভার জানান, রোহিঙ্গাদের ওপর জান্তা সেনা এবং আরাকান আর্মি উভয় পক্ষই আক্রমণ চালিয়েছে। এছাড়া অন্তত চারজনের শিরশ্ছেদের ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

 

রোহিঙ্গারা উভয় সংকটে পড়েছে বলে জানান তানভির। সামরিক জান্তা এবং বিদ্রোহী উভয় পক্ষই তাদের সাথে যোগ দেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করছে। বলা হচ্ছে, যোগ না দিলে তাদের গ্রাম পুড়িয়ে দেওয়া হবে।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo