শনিবার, ১৩ Jul ২০২৪, ১২:১৪ অপরাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
সেই ১৪ ট্রাক চোরাই চিনির নিলাম আজ বিপৎসীমার ওপরে সুরমার পানি, ভোগান্তিতে লক্ষাধিক মানুষ বেড়েছে ধলাই নদীর পানি, ঝুঁকিপূর্ণ প্রতিরক্ষা বাঁধ কর্মবিরতিতে শাবিতে অচলাবস্থা তৃতীয় দফায় বন্যার কবলে সিলেট অঞ্চল, পানিবন্দি কয়েক লাখ মানুষ মাধবপুরে কবরস্থান দখল করে কঙ্কাল তুলে সবজি চাষের অভিযোগ হবিগঞ্জে নাগালের বাইরে সবজির দাম শ্মশানঘাটে ২ শিশুর লাশ সমাহিত করতে বাধা, নদীতে ভাসিয়ে দিল পরিবার হবিগঞ্জে ছোট ভাইয়ের হাতে বড় বোন খুন ভারতে ধর্মীয় অনুষ্ঠানে পদদলিত হয়ে নিহত ১২০ দোয়ারাবাজারে নৌকা ডুবে শিশুসহ নিখোঁজ ৩ সিলেটে মাদকসহ তিন যুবক আটক ধোপাগুলে ট্রাক-কার সংঘর্ষে স্বামী-স্ত্রী নিহত চাঁদাবাজি করতে গিয়ে যুবলীগ নেতা আটক হবিগঞ্জে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু শেখ হাসিনা অসহায় মানুষের পরম বন্ধু: শফিক চৌধুরী সিলেট-সুনামগঞ্জে ফের বন্যার শঙ্কা হবিগঞ্জে মাকে হত্যার দায়ে ছেলের মৃত্যুদণ্ড বিদেশি মদসহ দুইজন গ্রেপ্তার দক্ষিণ সুরমায় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ জকিগঞ্জে বিপুল পরিমাণ ভারতীয় মদসহ একজন গ্রেপ্তার বিশ্বম্ভরপুর থানায় ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার উদ্বোধন হবিগঞ্জে বন্যা পরবর্তী সময়ে খাদ্য সংকটে শিশুরা তারেককে দেশে ফেরাতে জোর তৎপরতা চলছে: প্রধানমন্ত্রী ঈদযাত্রায় ৩০৯টি সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪৫৮ গাজায় নিখোঁজ ২০ হাজারের বেশি শিশু নগরীতে পুনর্বাসন কেন্দ্রে তিন কিশোরীর আত্মহত্যার চেষ্টা শায়েস্তাগঞ্জে চিনি বোঝাই ট্রাকের চাপায় পুলিশ কনস্টেবল নিহত, আটক ৩ মধ্যনগরে সেই চেয়ারম্যানসহ ২০ জনের বিরুদ্ধে মামলা বন্যার পানি নেমে গেলেও বিপাকে আশ্রয়হীনরা
কাটা শেষ হলো হাওরের ধান

কাটা শেষ হলো হাওরের ধান

 

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :: হাওরের সব ধান কাটা শেষ। হাওর অঞ্চলে বোরোর ‘বাম্পার ফলনে’ খুশি কৃষক। চলতি বছরে প্রকৃতির আনুকূল্যে হাওরবাসীর উৎসবের উপলক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছে আধুনিক কম্বাইন হারভেস্টারে ধান সংগ্রহ অভিযান। কম্বাইন হারভেস্টার দিয়ে দ্রুত ধান কেটে গোলায় তুলছেন তারা। একই সঙ্গে মেশিন দিয়েই চলছে ধান মাড়াই ও বস্তাবন্দীর কাজ।

 

কৃষকেরা বলছেন, কম্বাইন হারভেস্টার যন্ত্রটি তাদের ধান ঘরে তুলতে বড় ভূমিকা রেখেছে। এরই মধ্যে সুনামগঞ্জের হাওরের প্রায় সব ধান কাটা শেষ হয়েছে। তারা ক্ষেত থেকে পাকা বোরো ধান বস্তায় ভরে নিয়ে বাড়িতে ফিরছেন, আবার কেউ কেউ বিক্রি করছেন আশপাশের হাটে।

 

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর (ডিএই) জানায়, হাওরাঞ্চলের ধান কাটা শেষ হয়ে গেছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার হাওরে বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। ধানের উৎপাদন এ বছর লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাওয়ার আশা করা হচ্ছে।

 

সিলেট, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজার এই চার জেলা নিয়ে সিলেট বিভাগ। চার জেলায়ই রয়েছে অসংখ্য হাওর। তবে সবচেয়ে বেশি হাওর সুনামগঞ্জে। ছোট-বড় ১৩৭টি হাওর নিয়ে গঠিত সুনামগঞ্জকে হাওরের রাজধানীও বলা হয়। দেশের বোরো ধানের একটি বড় অংশ এ জেলায়ই উৎপাদিত হয়। বৃষ্টি আর অকাল বন্যায় ফসলের ক্ষতিও সুনামগঞ্জেই সবচেয়ে বেশি হয়।

 

ডিএই সূত্রে জানা যায়, এবার সুনামগঞ্জে ২ লাখ ২৩ হাজার ৪০৭ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে। ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল প্রায় ১৩ লাখ ৭০ হাজার ২০০ মেট্রিক টন। তবে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি হয়েছে।

 

কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, হাওরের ফসলকে ঝুঁকিমুক্ত করতে বর্তমান সরকার বহুমুখী উদ্যোগ বাস্তবায়ন কাজ করে যাচ্ছে। পাকা ধান যাতে দ্রুত কৃষকের ঘরে তোলা যায়, সেজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান কৃষিবান্ধব সরকার ৭০ শতাংশ ভর্তুকিতে হাওরের কৃষকদের ধান কাটার যন্ত্র কম্বাইন হারভেস্টার ও রিপার দিয়ে যাচ্ছে।

 

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, হাওরভুক্ত ৭টি জেলায় এবার ৪ হাজার ৪০০টির বেশি কম্বাইন হারভেস্টার দিয়ে ধান কাটা চলেছে। এর মধ্যে এ বছরই নতুন ১০০টি কম্বাইন হারভেস্টার বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। দেশের অন্য এলাকা থেকেও হাওরের বোরো ধান কাটার জন্য কম্বাইন হারভেস্টার নিয়ে আসা হয়েছে। এর ফলে দ্রুততার সাথে ধান কাটা সম্ভব হয়েছে।

 

সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলার কৃষক সেলিম আহমদ বলেন, এবার খুব ভালো ধান হয়েছে। বন্যা না হওয়ায় সব ধান গোলায় তুলতে পেরেছি। তবে ধান কাটা প্রায় শেষ হলেও ধান শুকানো, গো খাদ্য সংগ্রহের জন্য আরও কয়েকটা দিন রোদের প্রয়োজন। না হলে ধান পেলেও গো খাদ্য নিয়ে বর্ষায় সমস্যায় পড়তে হবে।
সুনামগঞ্জের এই হাওরের আরেক কৃষক গুফরান বলেন, ধান কাটা শেষ হয়ে গেছে। এবার ফলন ভালোই হয়েছে। ভালোয় ভালোয় ফসল ঘরে তুলতে পারায় কৃষকরা খুশি। তবে আগে যেমন ধান কাটতে চিন্তা করতে হতো, শ্রমিকের সমস্যা থাকতো, এখন আর তেমন নেই। আমার ৭ বিঘা জমির ধান দিনে হারভেস্টর দিয়ে কেটে নিয়েছি। কয়েকদিন রোদ থাকায় তা শুকিয়ে ঘরে তুলেছি। টানা বৃষ্টি শুরু হলে ধান কাটা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়তাম। কারণ ধান ভালো করে রোদে শুকাতে না পারলে এগুলোতে পচন ধরে নষ্ট হয়ে যেত।

 

শনির হাওরের কৃষক আবদুল খালেক জানান, জমিতে ভালো ফলন হয়েছে। এবার আবহাওয়া ভালো হওয়ায় ফসল ঘরে তুলতে পারছি।

 

সুনামগঞ্জের এক কৃষি কর্মকর্তা জানান, আগে কৃষক ধান নিয়ে দুশ্চিন্তা করলেও এখন কৃষিতে যন্ত্রের ব্যবহারের কারণে আর কোনো দুশ্চিন্তা করে না। তবে আজ থেকে ২৫ বছর আগে নদীগুলো পানি নিতে পারতো। যার ফলে বৃষ্টি এলেও ধান পানিতে তলিয়ে যেত না।

 

বিগত ৫-৭ বছর থেকে বালি ও পলি আসার কারণে খাল ও নদীগুলো ভরাট হয়ে যাচ্ছে। অনেক কিছু হয়ে যাচ্ছে। তবে মেশিনগুলো আসার পরে ১৫ দিনের মধ্যে ধান কাটা শেষ হয়ে যাচ্ছে।

 

এতো তাড়াতাড়ি হাওরের ধান কাটা প্রসঙ্গে সুনামগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক (ডিডি) বিমল চন্দ্র সোম বলেন, প্রধান কারণ হলো কৃষিতে যান্ত্রিকীকরণ। আমার এলাকায় ৮০২টি কম্বাইন হারভেস্টর ছিল। এছাড়া বাইরের বিভিন্ন জেলা থেকে এসেছে ৩২০টি কম্বাইন হারভেস্টর। এই মোট ১১২২টি কম্বাইন হারভেস্টর ধান কেটেছে।

 

তিনি আরও বলেন, গত ৫ মে আমার হাওরের ধান কাটা প্রায় শতভাগ শেষ হয়েছে। এবার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ লাখ ২৩ হাজার ২৪৫ হেক্টর। অর্জন হয়েছে ২ লাখ ২৩ হাজার ৪০৭ হেক্টর।

 

বিমল চন্দ্র বলেন, গতবারও আমরা ভালোভাবে ধান কাটতে পেরেছি। এ বছর আমরা ৪৩ শতাংশ ধান কম্বাইন হারভেস্টর দিয়ে কেটেছি। যেখানে কৃষক ভাইদের টাকা অনেক কম লেগেছে। একটা কম্বাইন হারভেস্টর প্রতিদিন ৪ হেক্টর ধান কাটতে পারে। সুনামগঞ্জ জেলায় উঁচু জায়গা যেগুলোকে নন-হাওর বলা হয়, এমন ১২ হাজর হেক্টর জমির ধান কাটা এখনো বাকি আছে। এসব এলাকায় বর্ষার পানি বা বন্যার পানি কোনো ক্ষতি করতে পারে না। কৃষক ধান একটু দেরি করে লাগায়।

 

বিমল চন্দ্র সোম আরও বলেন, এই জেলায় ৫ বছর আগে ৫০টি কম্বাইন হারভেস্টর ছিল। এরপর ১০০টি হারভেস্টর, তার পরের বছর ৪০০টি হারভেস্টর, এর পরের বছর ৭০০ আর এবার ৮০০টি হারভেস্টর ছিল।
সমন্বিত ব্যবস্থপনার মাধ্যমে কৃষি যান্ত্রিকীকরণ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক (পিডি) তারিক মাহমুদুল ইসলাম বলেন, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে কৃষির আধুনিকায়ন ও যান্ত্রিকীকরণের তথা স্মার্ট কৃষির কোনো বিকল্প নেই। এজন্য সমন্বিত ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে কৃষি যান্ত্রিকীকরণ প্রকল্পের আওতায় ১২ ক্যাটাগরির যন্ত্র হাওর ও উপকূলীয় অঞ্চলে ৭০ শতাংশ এবং সমতলে ৫০ শতাংশ ভর্তুকি মূল্যে বিতরণ করা হচ্ছে।

 

তিনি বলেন, কৃষি যান্ত্রিকীকরণ প্রকল্পের কারণেই এ মাসের ৫ তারিখের মধ্যে হাওরের ধান কাটা সম্ভব হয়েছে। এ প্রকল্প নেয়ার পর হাওরে কোনোবারই আগাম বন্যার কারণে কোনো ধান তলিয়ে যায়নি। তবে কৃষক পর্যায়ে যে পরিমাণ কম্বাইন হারভেস্টরের প্রয়োজন প্রকল্পে সে পরিমাণ সংস্থান নেই। এটা আরও বাড়ানো দরকার। এ বছর সারাদেশে ৫০ লাখ ৫৮ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে প্রায় ২০ হাজার হেক্টর বেশি। এবার বোরোতে চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা হলো ২ কোটি ২২ লাখ টন। গত আমন মৌসুমে কম্বাইন হারভেস্টার ও অন্যান্য কৃষিযন্ত্রের ব্যবহারে কৃষকের অর্থিক সাশ্রয় ১ হাজার ২৫০ কোটি ৬০ লাখ ৬ হাজার ৪৯৬ দশমিক ৫০ টাকা।

 

তিনি বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগকে পাশ কাটিয়ে স্মার্ট কৃষির সহায়তায় খুব কম সময়ে ধান সংগ্রহ করে হাওর তথা দেশবাসীর খাদ্য নিরাপত্তার উত্তম বিধান নিশ্চত করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী ও কৃষিমন্ত্রী। কিষান-কিষানি ও কৃষি সম্প্রসারণের মিলিত প্রয়াস উন্নয়নের এই ধারাকে অব্যাহত থাকবে।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo