সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৫২ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
দোয়ারাবাজারে আ.লীগের ঈদ পুনর্মিলনী ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত সিলেটে বর্ণিল আয়োজনে বর্ষবরণ জৈন্তাপুরে বাংলা নববর্ষ উদযাপন বিএনপি বাঙালি সংস্কৃতিকে সহ্য করতে পারে না: কাদের আসুন, সুন্দর ভবিষ্যৎ বিনির্মাণে একযোগে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে, কাল ঈদ সবার সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করুন: প্রধানমন্ত্রী নিসচা জুড়ী উপজেলা শাখার কমিটি গঠন মহানগর বিএনপির ঈদ শুভেচ্ছা সামর্থ্যানুযায়ী দুঃখি মেহনতী মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে: ড. মোমেন এমপি চাঁদ দেখা যায়নি, ঈদ বৃহস্পতিবার মহানগর আ.লীগের ঈদ শুভেচ্ছা বিএনপি ভুলের চোরাবালিতে নিমজ্জিত: কাদের রাজকুমার’ শাকিবকে যা বললেন ‘প্রিয়তমা’ ইধিকা সৌদি আরবে ঈদের তারিখ ঘোষণা সিলেটে বর্ষবরণের যত আয়োজন সরকার দেশ ও মানুষের কথা সবসময় ভাবে: ড. এ কে আব্দুল মোমেন এমপি নদীর চর কেটে মাটি বিক্রি, ঝুঁকিতে প্রতিরক্ষা বাঁধ পর্যটকদের বরণে প্রস্তুত কমলগঞ্জ জুড়ীতে ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের ঢেউটিন প্রদান লোডশেডিং আর তীব্র পানি সংকটে নাকাল নগরবাসী ঈদের দিন কেমন থাকতে পারে সিলেটের আবহাওয়া হুন্ডি আর প্রচারণার অভাবে কমলো রেমিট্যান্স জগন্নাথপুরে পাঁচ ব্যাংকের এটিএম বুথে নেই টাকা, ভোগান্তিতে গ্রাহকেরা মেধাবী শিক্ষার্থীরা দেশের সম্পদ: মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী সিলিংয়ের ঝুলছিল বিশাল অজগর শ্রীমঙ্গলে নিলামে ১টি ডিম ১৯ হাজার, ১টি আতা ফল ১৫শ টাকা! ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে ‘কিশোর গ্যাং’ মোকাবিলার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর আবারও বাড়ল স্বর্ণের দাম শ্রুতি সম্মাননা পাচ্ছেন বাউল আবদুর রহমান
স্কুল ফাঁকি দিয়ে বিদেশে শিক্ষকরা

স্কুল ফাঁকি দিয়ে বিদেশে শিক্ষকরা

 

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি  :: সুনামগঞ্জের ছিক্কা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা মোছা. সোমা বেগম। গেল বছরের ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দুই দফা চিকিৎসা ছুটিতে ছিলেন এই শিক্ষিকা। এই ছুটিকালীন সময়েই স্বামীর সঙ্গে যুক্তরাজ্যে চলে যান তিনি। এরপর আর স্কুলের সঙ্গে যোগযোগ নেই তার। চাকরি থেকে অব্যাহতি না নেওয়ায় তার এই পদটি শূন্যও ঘোষণা করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। তবে বিনা অনুমতিতে অনুপস্থিতির দায়ে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হয়েছে।

 

শুধু সোমা বেগম নন, জেলার ১৯ জন সহকারী শিক্ষক এবং একজন প্রধান শিক্ষক দীর্ঘদিন ধরে বিনা অনুমতিতে বিদ্যালয়ে না আসায় বিভাগীয় মামলা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।

 

কর্তৃপক্ষের তদন্ত টিম গত মঙ্গলবার সুনামগঞ্জের গুদিগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পরিদর্শনে গিয়ে জেনেছেন, এই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গত বছরের জুলাই মাসের পর থেকে আর বিদ্যালয়ে যাননি। অথচ তিনি কোনো ছুটির আবেদনও করেননি।

 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলার জগন্নাথপুর উপজেলার মক্রমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো. রাহিম আহমদ, শেওড়া পাটকুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক জ্যোৎস্না বেগম, ছিক্কা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোছা. সোমা বেগম, কেশবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মাহিমা আক্তার, ভবানীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শেফালী বেগম, মিরপুর মহল্লা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোছা. শারমীনা বেগম, জামারগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ফাহমিদা সুলতানা খানম ও কুবাজপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক এসএম আশা হক, দিরাই উপজেলার সিরুথুপা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক বিলকিস আক্তার কলি, হলিমপুর শ্রী নারায়ণপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক চামেলী বেগম, রতনগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক রূপা তালুকদার, ইসলামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক লুবনা বেগম ও সিরিয়ারচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সুমনা রানী তালুকদার, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার কৌয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শাহ আশুরা আক্তার নাসরিন, তাহিরপুর উপজেলার ফয়েজ আহমদ সাহিদাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সাজেদা আফরিন আশা, ধর্মপাশা উপজেলার গাবী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শিখা আক্তার, শাল্লা উপজেলার ভাটগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক গীতা রানী দাস ও চবিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোজাম্মিল হক সোহাগ, ছাতক উপজেলার জাউয়াবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো. ফয়ছল আহমদ এবং সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার গুদিগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. কামরুজ্জামানের বিরুদ্ধে বিনা অনুমতিতে দীর্ঘদিন হয় বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকায় বিভাগীয় মামলা হয়েছে।

 

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানান, বিনা অনুমতিতে অনুপস্থিত শিক্ষকদের বেশিরভাগই লন্ডন-আমেরিকায় রয়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার গুদিগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সরেজমিনে তদন্তে যান ডিজি অফিসের তদন্তকারী কর্মকর্তারা। ওখানকার স্থানীয় বাসিন্দা ও শিক্ষকরা বলেছেন, প্রধান শিক্ষক দীর্ঘদিন ধরে অনুপন্থিত থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছেন তারা।

 

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহন লাল দাস বলেন, বিনা অনুমতিতে দীর্ঘদিন বিদ্যালয়ে অনুপস্থিতির সংখ্যা আরও বেশি ছিল। বিভাগীয় মামলা দায়েরের পর কর্তৃপক্ষ বেশ কিছু পদ শূন্য ঘোষণা করেছে। সারা জেলায় আরও ১৯ জন সহকারী শিক্ষক ও একজন প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা চলমান রয়েছে। শিগগিরই তাদের বিষয়েও সিদ্ধান্ত হতে পারে।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo