বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৪৭ অপরাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
মার্চে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানি ৫৬৫ জনের সিলেটের চার উপজেলায় লড়বেন ৬০ জন প্রার্থী শান্তিগঞ্জে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার থাইল্যান্ড যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী সিলেটে শিলাবৃষ্টির আভাস মৌলভীবাজার পৌরসভার দুটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমিকের হুমকিতে নিরুপায় স্বামী কারিতাস বাংলাদেশ মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে: এম এ মান্নান এমপি কোম্পানীগঞ্জে শাহিন হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন হাঁসে ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে বৃদ্ধ নিহত আমাদের লক্ষ্য খাদ্য নিরাপত্তা ও পুষ্টি: প্রধানমন্ত্রী সুনামগঞ্জে বোরোর বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি নবীগঞ্জে বাস চাপায় ২জন নিহত নদী যেন ময়লার ভাগাড়, দূষিত হচ্ছে পরিবেশ সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন সংগীতশিল্পী পাগল হাসান ধান কাটানো নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষকেরা জুড়ীতে জামায়াত নেতার মনোনয়ন বাতিল বালাগঞ্জে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত শাবিতে মুজিবনগর দিবস পালিত জুড়ীতে মুজিবনগর দিবস উদযাপন মধ্যপ্রাচ্যের উত্তেজনা নিয়ে মন্ত্রীদের তীক্ষ্ণ নজর রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ঝালকাঠিতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত বেড়ে ১৪ ঈদের ছুটিতে লাউয়াছড়ায় সর্বাধিক রাজস্ব আয় চায়ের ন্যায্যমূল্য না পেয়ে হতাশ বাগান মালিকরা শ্রীমঙ্গলে তাপদাহে মানুষের নাভিশ্বাস র‍্যাবের হাতে গ্রেপ্তার মাদক ব্যবসায়ী পুলিশের ঘুষিতে আসামির মৃত্যু! সিলেটকে স্মার্ট সিটি হিসেবে গড়তে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে: আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী বৃষ্টিতে আরব আমিরাতে বন্যা, দুবাই বিমানবন্দরে ফ্লাইট চলাচল বন্ধ শিল্পী সমিতির নির্বাচনে লড়ছেন যেসব তারকা
অধিকার থেকে বঞ্চিত নারী চা শ্রমিকরা

অধিকার থেকে বঞ্চিত নারী চা শ্রমিকরা

 

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি :: সবুজ চা পাতার সঙ্গে নারীর সম্পর্ক আজকের নয়, বহুকালের। দুটি পাতা একটি কুঁড়ি উঠে আসে নারীদের হাত স্পর্শ করে। নারীর ঘামে-শ্রমেই আজ চা শিল্প সুপ্রতিষ্ঠিত। যে নারী চা শিল্পকে অধিষ্ঠিত করেছেন মর্যাদার আসনে, আজও তারা অনেক অধিকার থেকে বঞ্চিত।

 

বাংলাদেশে মোট চা-বাগানের সংখ্যা ২৪০টি (ফাঁড়ি বাগানসহ)। এর মধ্যে মূল বাগান রয়েছে ১৫৮টি। সারাদেশে কর্মরত চা শ্রমিকের সংখ্যা প্রায় ১ লাখ ৩০ হাজার। চা শ্রমিকদের সিংহভাগই নারী। বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন সূত্রে জানা যায়, নারী-পুরুষের মজুরি এখন দৈনিক ১৭০ টাকা হলেও তিন ক্যাটাগরির বাগান রয়েছে। ফলে অনেক বাগানে নারী শ্রমিককে এখনও ন্যূনতম মজুরি ১২০ টাকাও দেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া চুক্তিভিত্তিক শ্রমিক এবং বাগানের স্থায়ী শ্রমিকের মজুরি এক হওয়ার কথা থাকলেও তা দেওয়া হয় না।

 

নারী চা শ্রমিকদের মুখেই শোনা যাক কর্মক্ষেত্রে তাদের অভিজ্ঞতার কথা। আলীনগর চা-বাগানের অঞ্জনা কৈরী জানান, কর্মক্ষেত্রে নারীর বড় সমস্যা হলো তাদের প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গিয়ে বিভিন্ন বাধার মুখে পড়তে হয়। চা-বাগানের প্রতিটি সেকশনে (পৃথক পৃথক আবাদ) বৃষ্টির সময় ছাউনি থাকে না। ফলে বৃষ্টি গায়ে মেখেই কাজ করতে গিয়ে ঠান্ডাজনিত নানা রোগ-শোকে ভুগতে হয় তাদের।

 

উপজেলার রাজঘাট চা-বাগানের চা শ্রমিক সুমা নায়েক, দীপা তাঁতি ও নীলু তাঁতি জানান, চার পুরুষ ধরে চা-বাগানে বাস করছেন, তারপরও তাদের বাসস্থানের মালিকানার অধিকার নেই। এ কারণে বিভিন্ন এনজিও থেকে ক্ষুদ্রঋণ নিয়ে চা-বাগানের বাইরের নারীদের মতো তারা হাঁস, মুরগি লালন-পালন কিংবা অন্য কোনো ছোট ব্যবসা করে অতিরিক্ত আয় করার সুযোগ পাচ্ছেন না। তাদের শুধু চা-বাগানের কাজ থেকে উপার্জিত টাকায় সন্তুষ্ট থাকতে হচ্ছে। এতে তাদের জীবনমানের উন্নয়ন হচ্ছে না। এমনকি ছেলে-মেয়েকে ঠিকমতো লেখাপড়াও করাতে পারছেন না।

 

শ্রীমঙ্গলের সিন্দুরখান ইউনিয়নের ব্রহ্মাছড়া চা বাগানের তৃষ্ণা গোয়ালা, প্রতিমা নায়েক, অর্চনা গোয়ালাসহ কয়েকজন নারী শ্রমিক বলেন, অতীতে টিলাবাবুরা (চা-বাগানের কর্মকর্তা) উত্তোলিত চা পাতা পরিমাপের সময় ইচ্ছামতো ওজনে কম বুঝে নিত। কোনো নারী শ্রমিক এর প্রতিবাদ করার সাহস পেত না। ট্রেড ইউনিয়নের পাশাপাশি চা-বাগানের নারী শ্রমিকদের স্বার্থ সংরক্ষণে ১৯৯৭ সালে মাদার্স ক্লাব নামে একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করা হয়। নারীদের অধিকার নিয়ে এ সংগঠন কাজ করত। বাগানে এ সংগঠনের কমিটি গঠন করা হয়েছিল। এ সংগঠনের কার্যক্রমের ফলে তারা প্রতিবাদ করতে শেখে। তাদের প্রতিবাদের মুখে টিলাবাবুরা সঠিক ওজন দিতে বাধ্য হতেন। কিন্তু ২০০৫ সাল থেকে চা-বাগানে মাদার্স ক্লাবের কার্যক্রম বন্ধ থাকায় নারী শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের ক্ষেত্রে তারা পিছিয়ে পড়ছেন।

 

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি পংকজ কন্দ বলেন, বিশেষ করে নারীদের কর্মক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় যে অসুবিধায় মধ্যে পড়তে হয় সেটি হলো, চা-বাগানের সেকশনগুলোতে নারী চা শ্রমিকদের জন্য শৌচাগার এবং প্রক্ষালন কক্ষ নেই। বিষয়টির প্রতি দৃষ্টি দেওয়ার জন্য সরকার ও বাগান কর্তৃপক্ষের প্রতি দাবি জানান তিনি।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo