বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১২:২৪ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
সিলেটে শিলাবৃষ্টির আভাস ভাই-ভাতিজাদের হাতে খুন হলেন সাবেক ইউপি সদস্য সোনার দাম কমল পদে থেকেই নির্বাচন করতে পারবেন ইউপি চেয়ারম্যানরা সুনামগঞ্জে ট্রাক-অটোরিকশার সংঘর্ষে নিহত ১ জলবসন্তে আক্রান্ত হয়ে এএসআইয়ের মৃত্যু জগন্নাথপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি শংকর রায় আর নেই চুরি করে পালানার সময় গাড়িসহ আটক ১ সিসিকের অভিযান, জরিমানা আদায় উপজেলা নির্বাচনের চতুর্থ ধাপের তফসিল ঘোষণা বাংলাদেশ ও কাতারের মধ্যে ৫টি চুক্তি এবং ৫টি সমঝোতা স্মারক সই সিলেট জেলা ছাত্রলীগের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালিত আ.লীগের দুই প্রার্থীর সাথে লড়বেন স্বর্ণালী হিজড়া সৌদিতে নির্যাতিত হবিগঞ্জের গৃহকর্মীর আর্তনাদ বেনজীরের সম্পদ অনুসন্ধানে দুদক ইন্টারনেট ব্যবসা নিয়ে সংঘর্ষে আহত ৫০ কুলাউড়ায় কালবৈশাখী ঝড়ে বিদ্যুৎ বিপর্যয় হোটেলে অসামাজিক কাজের অভিযোগে নারীসহ আটক ৯ ইন্টারনেট ব্যবসা নিয়ে সংঘর্ষে আহত ৫০ দেশে ৩ দিনের ‘হিট অ্যালার্ট’, সিলেটে থাকবে ঝড়-বৃষ্টি যুদ্ধ ব্যয়ের অর্থ জলবায়ু পরিবর্তনে ব্যবহার হলে বিশ্ব রক্ষা পেত: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাইল হাওরে চিকন ধানের বাম্পার ফলন বালু উত্তোলনে ক্ষয়ক্ষতির মুখে নদী সংলগ্ন এলাকা হাওরজুড়ে সোনালী ধানের ঢেউ, দাম নিয়ে শঙ্কায় কৃষকরা অভিনেতা রুমি মারা গেছেন ঈদযাত্রায় ২৮৬ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩২০ ১৯ দিনে প্রবাসী আয় এসেছে ১২৮ কোটি ১৫ লাখ ডলার জৈন্তাপুরে চেয়ারম্যান পদে ৫ প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল বিশ্বনাথে পানিতে ডুবে প্রাণ গেল দুই ভাইয়ের বেনজীরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা চেয়ে দুদকে এমপি ব্যারিস্টার সুমন
ইটভাটায় পুড়ছে তিন ফসলি জমি

ইটভাটায় পুড়ছে তিন ফসলি জমি

 

চুনারুঘাট প্রতিনিধি :: তিন ফসলি জমির বুকে চেপে বসেছে ইটভাটা। সেখানে জ্বলছে আগুন। আর তাতে জমির উর্বরতা কমে যাচ্ছে ক্রমাগত। ইটভাটার ধোঁয়া আর বৃক্ষ নিধনের ফলে বিষাক্ত হয়ে উঠছে পরিবেশ। এমনই ভয়াল বাস্তবতার মুখোমুখি হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলা।

 

নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে চুনারুঘাট উপজেলায় গড়ে তোলা হয়েছে বেশ কয়েকটি ইটভাটা। এসব ভাটার প্রায় সবকটিই গড়ে তোলা হয়েছে উর্বর ফসলি জমির বুকে। একই সঙ্গে সেখানে ইট তৈরির জন্য কেটে নেওয়া হচ্ছে আশপাশের ফসলি জমির উপরিভাগের মাটি। এতে উর্বরতা হারাচ্ছে কৃষিজমি, নিধন হচ্ছে বৃক্ষ, চরমভাবে দূষিত হচ্ছে পরিবেশ, বাড়ছে রোগবালাই। এ নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে চরম ক্ষোভের সঞ্চার হলেও নির্বিকার প্রশাসন। অভিযান আর ব্যবস্থা নেওয়ার প্রতিশ্রুতি অঢেল।
হবিগঞ্জ জেলার অন্যতম শস্য-শ্যামল উপজেলা হিসেবে খ্যাত চুনারুঘাট। পর্যটকদের মনকাড়া নৈসর্গিক চুনারুঘাটে রয়েছে সাতছড়ি, কালেঙ্গার মতো বনাঞ্চল, বিস্তীর্ণ চা-বাগান। অর্থকরী ফসলের ভান্ডার হিসেবে পরিচিত এ উপজেলার পরিবেশ এখন ভয়াবহ হুমকির মুখে। এ উপজেলায় প্রায় পাঁচ লাখ মানুষের বসবাস। প্রায় ৭০ শতাংশ মানুষের জীবিকা নির্ভর করে কৃষির ওপর।
এখানে গড়ে ওঠা প্রায় ২৭টি ইটভাটার মধ্যে অধিকাংশের নেই পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র। ইটভাটার কালো ধোঁয়া মানবদেহ ও পরিবেশের ভয়াবহ ক্ষতি করছে। ভাটার কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহৃত মাটি নেওয়া হচ্ছে ফসলের জমি থেকে। এর ফলে ফসলি জমি উর্বরতা হারাচ্ছে। সরকারি নিয়মনীতি ও প্রচলিত বিধিবিধানকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের ফসলি জমি ও জনবসতিপূর্ণ এলাকায় নির্মাণ করা হয়েছে এসব ভাটা। জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে গ্রাম ও বনাঞ্চলের কাঠ। এর ফলে উজাড় হচ্ছে গ্রামের গাছপালাসহ বিভিন্ন বন।
সরকারি নীতিমালায় নিষেধ থাকলেও আবাদি জমি ও বসতবাড়ির কাছেই এসব ইটভাটার অবস্থান। একাধিক মালিক তাদের ইটভাটার এক কিলোমিটারের মধ্যে বসতবাড়ি, বাগান ও ফসলি জমি থাকার কথা স্বীকার করেন। প্রশাসনের নাকের ডগায় এসব ইটভাটা নির্মাণ করা হয়েছে। চলছে কার্যক্রম। অথচ তা দেখার কেউ নেই।
সদর ইউনিয়নের জাজিউতায় শোভা, তিতাস, তরফ নামে তিনটি এবং সাটিয়াজুরী ইউনিয়নের সুন্দরপুর হেলথ কমপ্লেক্সের অদূরে আবাদি জমির মাঝখানে দুটি ইটভাটা নির্মাণ করা হয়েছে। এই ইউনিয়নের সুন্দরপুর গ্রামে জনবসতিপূর্ণ ও আবাদি জমির মাঝে ইটভাটা নির্মাণ করা হয়েছে। গ্রামের লোকজনের বাড়ির পেছনে দি সান ও মিতালি ইটভাটাটি নিয়মনীতি উপেক্ষা করে নির্মাণ করা হয়েছে।
সুন্দরপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, দি সান ও মিতালি ইটভাটায় নতুন ইট তৈরি করা হচ্ছে। এখানে কয়লা ভাঙানোর মেশিনের ধোঁয়া বের হচ্ছে অনর্গল। জানা গেল, আশপাশের ফসলি জমি লিজ নিয়ে ভাটা স্থাপন করা হয়েছে।

 

ওই গ্রামের বাসিন্দা ছায়া বেগম জানান, এই এলাকায় গাছগাছালিতে তেমন ফল ধরে না। ভাটার কারণে সমস্যা লেগেই আছে। আশপাশের আবাদি জমির টপ সয়েল (উর্বর মাটি) কেটে ইটভাটায় আনা হচ্ছে।

 

গ্রামের কৃষকরা প্রভাবশালী ইটভাটার মালিকদের ভয়ে কথা বলেন না। তারা বলছেন, যাদের ভয়ে খোদ প্রশাসন কাবু, তাদের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষের কথা বলার প্রশ্নই ওঠে না।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক কৃষক জানান, ভাটার কারণে জমির আবাদ নিয়ে চিন্তায় আছেন তারা। ভয়ে কিছু বলতেও পারছেন।

 

চুনারুঘাট সদর ইউনিয়নের জাজিউতায় গড়ে তোলা হয়েছে শোভা ব্রিক ফিল্ড। ভাটার উত্তর দিকে অবস্থিত জমির মালিক বলেন, আবাদি জমির মধ্যে ইটভাটা নির্মাণ করা নাকি বেআইনি। তাহলে এগুলো কোন আইনে চলছে!
ইটভাটার মালিক ও পরিচালক কদ্দুছ ও সালাম মিয়া জানান, তাদের সব কাগজ আছে। আইন মেনেই ইটভাটা নির্মাণ করা হয়েছে। কাগজে কোনো সমস্যা নেই।

 

এমন স্থানে কীভাবে ইটভাটার অনুমোদন দেওয়া হলো তা জানতে চাইলে হবিগঞ্জ পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আখতারুজ্জামান টুকু বলেন, ২৭টির মধ্যে বেশ কয়েকটি ইটভাটা পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে ছাড়পত্র নেয়নি। তাই সেগুলো অবৈধ। এসব ভাটার বিরুদ্ধে অচিরেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

পরিবেশ অধিদপ্তরের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ভাটার অবস্থান হতে হবে লোকালয় ও এলজিইডির পাকা সড়ক থেকে ন্যূনতম আধা কিলোমিটার দূরে। প্রস্তাবিত জায়গাটি আবাদি কিনা সে ব্যাপারে কৃষি বিভাগের প্রত্যয়নপত্র, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এবং প্রশাসনের অনাপত্তি, ট্রেড লাইসেন্স, আনুষঙ্গিক কাগজপত্রসহ আবেদনপত্র হাতে পেলে তদন্ত করে পরিবেশগত ছাড়পত্র দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

 

স্থানীয়রা বলছেন, এসব অনুমোদন আর নথি ছাড়াই অনেক ইটভাটা চলছে; যা প্রমাণ করে ভাটার মালিকদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবার সমঝোতা হয়েছে।

 

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাহিদুল ইসলাম জানান, উপজেলার বিভিন্ন স্থানে তিন ফসলি জমি নষ্ট করে ইটভাটা নির্মাণ করা হচ্ছে। এতে কৃষির ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। আবাদি জমিতে ইটভাটা নির্মাণ করায় কৃষি বিভাগ থেকে কোনো প্রত্যয়নপত্র দেওয়া হয়নি।
তবে ছাড়পত্র ছাড়া সেগুলো কীভাবে করা হলো, এমন প্রশ্নের কোনো উত্তর তিনি দিতে পারেননি।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo