বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:০৮ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
সিলেটে শিলাবৃষ্টির আভাস ভাই-ভাতিজাদের হাতে খুন হলেন সাবেক ইউপি সদস্য সোনার দাম কমল পদে থেকেই নির্বাচন করতে পারবেন ইউপি চেয়ারম্যানরা সুনামগঞ্জে ট্রাক-অটোরিকশার সংঘর্ষে নিহত ১ জলবসন্তে আক্রান্ত হয়ে এএসআইয়ের মৃত্যু জগন্নাথপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি শংকর রায় আর নেই চুরি করে পালানার সময় গাড়িসহ আটক ১ সিসিকের অভিযান, জরিমানা আদায় উপজেলা নির্বাচনের চতুর্থ ধাপের তফসিল ঘোষণা বাংলাদেশ ও কাতারের মধ্যে ৫টি চুক্তি এবং ৫টি সমঝোতা স্মারক সই সিলেট জেলা ছাত্রলীগের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালিত আ.লীগের দুই প্রার্থীর সাথে লড়বেন স্বর্ণালী হিজড়া সৌদিতে নির্যাতিত হবিগঞ্জের গৃহকর্মীর আর্তনাদ বেনজীরের সম্পদ অনুসন্ধানে দুদক ইন্টারনেট ব্যবসা নিয়ে সংঘর্ষে আহত ৫০ কুলাউড়ায় কালবৈশাখী ঝড়ে বিদ্যুৎ বিপর্যয় হোটেলে অসামাজিক কাজের অভিযোগে নারীসহ আটক ৯ ইন্টারনেট ব্যবসা নিয়ে সংঘর্ষে আহত ৫০ দেশে ৩ দিনের ‘হিট অ্যালার্ট’, সিলেটে থাকবে ঝড়-বৃষ্টি যুদ্ধ ব্যয়ের অর্থ জলবায়ু পরিবর্তনে ব্যবহার হলে বিশ্ব রক্ষা পেত: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাইল হাওরে চিকন ধানের বাম্পার ফলন বালু উত্তোলনে ক্ষয়ক্ষতির মুখে নদী সংলগ্ন এলাকা হাওরজুড়ে সোনালী ধানের ঢেউ, দাম নিয়ে শঙ্কায় কৃষকরা অভিনেতা রুমি মারা গেছেন ঈদযাত্রায় ২৮৬ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩২০ ১৯ দিনে প্রবাসী আয় এসেছে ১২৮ কোটি ১৫ লাখ ডলার জৈন্তাপুরে চেয়ারম্যান পদে ৫ প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল বিশ্বনাথে পানিতে ডুবে প্রাণ গেল দুই ভাইয়ের বেনজীরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা চেয়ে দুদকে এমপি ব্যারিস্টার সুমন
সিলেটে নতুন বই হাতে পেয়ে উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থীরা

সিলেটে নতুন বই হাতে পেয়ে উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থীরা

 

নিজস্ব প্রতিবেদক :: বছরের প্রথম দিনে হাতে নতুন বই। চোখে আনন্দের ঝিলিক। মুখে উচ্ছ্বাস। কারও চোখ চকচকে মলাটে, আবার কেউ নাড়াচাড়াতেই ব্যস্ত। নতুন বই হাতে পেয়ে তাদের বাঁধভাঙা উল্লাস। এভাবেই নতুন বইয়ের ঘ্রাণে মাতোয়ারা হলো সিলেটের শিক্ষার্থীরা।

 

সোমবার সকালে নগরীর বীরেশ চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় ও বর্ণমালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বই উৎসবের উদ্বোধন করেন সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী।

 

এসময় মেয়র বলেন, বাঙালির অনেক উৎসবের ঐহিত্য আছে। সেই উৎসবের সাথে এখন নতুন যুক্ত হয়েছে বই উৎসব। শিক্ষার্থীদের জন্য নতুন বছর মানেই নতুন ক্লাস আর নতুন বইয়ের উৎসব। শিক্ষার্থীরা বছরের প্রথম দিনে নতুন বই পেয়ে আনন্দে উচ্ছ্বসিত হয়ে ওঠে।

 

মেয়র আরও বলেন, শিক্ষা মানুষের মৌলিক অধিকার। একসময় বছরের শুরুতে বই পাওয়া যেত না। শিক্ষার্থীদের পুরাতন বই সংগ্রহ করে ক্লাসে যেতে হতো। অনেক পরিবার তার সন্তানের জন্য বইয়ের ব্যবস্থা করতে পারতো না। সে কারণে অনেক শিক্ষার্থী পড়ালেখা থেকে পিছিয়ে যেতো এবং ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে বৈষম্য তৈরি হতো। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার ২০১০ সাল থেকে বছরের শুরুতে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই পৌঁছে দিয়ে বৈষম্য দূর করে এবং শিক্ষার মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করে।

 

তিনি বলেন, বছরের শুরুতে সরকার শিক্ষার্থীদের মাঝে সারাদেশে আজ কোটি বই বিতরণ করে অন্যান্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। দেশকে উন্নতির শিখরে নিতে হলে শিক্ষার মান বাড়াতে হবে। শিক্ষকদের যথাযথ পাঠদান, মূল্যায়ন ও অভিভাবকদের সঠিক দায়িত্ব পালন করতে হবে।

 

সিলেট সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর জগদীশ চন্দ্র দাসের সভাপতিত্বে ও স্কুলের সহকারী শিক্ষক শিমুল চক্রবর্তীর পরিচালনায় এসময় আরও বক্তব্য রাখেন, সিলেট সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র মখলিছুর রহমান কামরান, মহিলা ওয়ার্ড কাউন্সিলর রেবেকা বেগম রেনু, বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম নজু, অনিল কৃঞ্চ মজুমদার, শিক্ষা কর্মকর্তা নেহার রঞ্জন দাস, সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা সাজলু লস্কর, শিক্ষা কর্মকর্তা তুতিউর রহমান, এপিএস শহিদ চৌধুরী বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অর্জুন চন্দ্র দাস, আমিরুল ইসলাম, হাজী সেলিম, নুরুজ্জামান শাহজাহানসহ নেতৃবৃন্দ।

 

সিলেট জেলা শিক্ষা অফিস ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, ১ জানুয়ারি সিলেট জেলার ৯ লাখ ৫১ হাজার ৫০২ জন প্রাথমিক, মাধ্যমিক, ইবতেদায়ী ও মাদরাসা শিক্ষার্থীর মধ্যে ৭৫ লাখ ৩২ হাজার ৯৮৫টি বই বিতরণ করা হয়।

 

সিলেট জেলা শিক্ষা অফিসের সহকারী পরিদর্শক মহসিনুর রহমান জানান, তাদের আওতায় মাধ্যমিক, ইবতেদায়ী ও মাদরাসায় (দাখিল পর্যন্ত) শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৪ লাখ ৯৩ হাজার ৯০১ জন। বছরের প্রথম দিনে তাদের ৫১ লাখ ৯১ হাজার ৮২০টি বই তুলে দেয়া হয়।

 

তিনি বলেন, মাধ্যমিক, ইবতেদায়ী ও মাদ্রাসায় (দাখিল পর্যন্ত) শিক্ষার্থীদের বইয়ের চাহিদা ছিল সামান্য একটু বেশি। প্রায় শতভাগ বই চলে এসেছে। যে সামান্য বাকি ছিল সেগুলো প্রতিদিনই আসছে।

 

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সাখাওয়াত এরশাদ জানান, জেলায় প্রাথমিকে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৪ লাখ ৫৭ হাজার ৬০১ জন। এর মধ্যে বইয়ের চাহিদা ছিল ২৩ লাখ ৪১ হাজার ১৬৫টি। এরই মধ্যে শতভাগ বই চলে এসেছে। যেগুলো বছরের প্রথম দিন থেকে বিতরণ শুরু হয়।

 

এদিকে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) সূত্রে জানা গেছে, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ে মোট ৪ কোটি ৯ লাখ শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিতরণের জন্য ২০২৩ শিক্ষাবর্ষে প্রায় ৩৫ কোটি পাঠ্যবইয়ের মধ্যে বেশিরভাগই ছাপা হয়ে গেছে।

 

এর মধ্যে প্রাক-প্রাথমিক, প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী মিলিয়ে এই স্তরে ৯ কোটি ৯৮ লাখ ৫৩ হাজার এবং মাধ্যমিক স্তরে স্কুল, মাদরাসা ও কারিগরি মিলিয়ে মোট ২৪ কোটি ৬৩ লাখ ১০ হাজার কপি পাঠ্যবই ছাপা হচ্ছে। এছাড়া ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর জন্য তাদের মাতৃভাষার বই ছাপা হচ্ছে মোট ২ লাখ ১২ হাজার ১৭৭ কপি বই।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo