শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৩৭ অপরাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
সিলেটে চোরাই মোটরসাইকেলসহ যুবক আটক একসঙ্গে ৬ সন্তানের জন্ম, আনন্দে আত্মহারা মা-বাবা ওসমানীনগরে বাস-ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত ২ শান্তিগঞ্জে কোরআন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের পুরস্কার বিতরণ অন্যান্য খেলার পাশাপাশি দেশি খেলাকে সুযোগ দিন: প্রধানমন্ত্রী আবারও শ্রেষ্ঠ ওসি জুড়ীর মাইন উদ্দিন দলের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে নির্বাচনে বিএনপির ৬ নেতা প্রেস কাউন্সিলের সনদ ফেরত দিয়ে সুনামগঞ্জে ১১ সাংবাদিকের প্রতিবাদ ঈদযাত্রায় সড়কে প্রাণ গেছে ৪০৭ জনের বজ্রপাত আতঙ্কে হাওরবাসী কুলাউড়ায় ট্রেনের কাটা পড়ে নারীর মৃত্যু দুইদিন পর চালু হলো তামাবিল স্থলবন্দর ইজারা নিয়ে সংঘর্ষের আশঙ্কা, ছাতকে ১৪৪ ধারা জারি তাপপ্রবাহের কারণে স্কুল-কলেজ সাত দিন বন্ধ মার্চে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানি ৫৬৫ জনের সিলেটের চার উপজেলায় লড়বেন ৬০ জন প্রার্থী শান্তিগঞ্জে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার থাইল্যান্ড যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী সিলেটে শিলাবৃষ্টির আভাস মৌলভীবাজার পৌরসভার দুটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমিকের হুমকিতে নিরুপায় স্বামী কারিতাস বাংলাদেশ মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে: এম এ মান্নান এমপি কোম্পানীগঞ্জে শাহিন হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন হাঁসে ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে বৃদ্ধ নিহত আমাদের লক্ষ্য খাদ্য নিরাপত্তা ও পুষ্টি: প্রধানমন্ত্রী সুনামগঞ্জে বোরোর বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি নবীগঞ্জে বাস চাপায় ২জন নিহত নদী যেন ময়লার ভাগাড়, দূষিত হচ্ছে পরিবেশ সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন সংগীতশিল্পী পাগল হাসান ধান কাটানো নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষকেরা
লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান
কালাছড়ায় কমে যাচ্ছে বন্যপ্রাণীর আবাসস্থল

লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান
কালাছড়ায় কমে যাচ্ছে বন্যপ্রাণীর আবাসস্থল

 

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি :: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের অধীনস্ত কালাছড়া বনবিটের টিলাভূমি বন্যপ্রাণীর বিচরণ এলাকা। তবে এখানকার মূল্যবান গাছগাছালি সাবাড় হচ্ছে। বন বিভাগের জনবল কম থাকায় প্রতিনিয়ত গাছ চুরি হওয়ায় বিলীন হচ্ছে পাহাড়, টিলা। স্থানীয় গাছচোর সিন্ডিকেটের কবলে কালাছড়া বনের আগর গাছ ও বাফারজোন বাগানের গাছগাছালি ধ্বংস হচ্ছে। ফলে সংকুচিত হচ্ছে বন্যপ্রাণীদের আবাসস্থল।

 

নানা প্রজাতির বৃহদাকার গাছগাছালিতে ঘন সন্নিবেশিত থাকলেও গত তিন দশকে লাউয়াছড়া বনের গভীরতা অনেক হ্রাস পেয়েছে। বনের ঘনত্ব কমে যাওয়ায় এখন আর পানি নেই। বিশ্বের বিলুপ্তপ্রায় উল্লুকসহ বিরল প্রজাতির বন্যপ্রাণী, উদ্ভিদ ও বৃক্ষরাজি সমৃদ্ধ লাউয়াছড়া।

 

লাউয়াছড়া সংলগ্ন কালাছড়া বনবিটে বন্যপ্রাণীর বিচরণ এলাকা। এই উদ্যানের পার্শ্ববর্তী কালাছড়া বনের প্রাকৃতিক গাছের অনেকগুলোই চুরি হয়েছে। এছাড়াও আগর গাছ ও বাফারজোন থেকে হরদম গাছ চুরি হওয়ায় বন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। বনের গাছগাছালি বিলীন হয়ে যাওয়ায় শুষ্ক মৌসুমে বনের ছড়া ও খাল শুকিয়ে বন্যপ্রাণীর খাবার পানি সংকট তীব্র হচ্ছে।

 

স্থানীয়রা জানান, বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ অঞ্চল হিসাবে লাউয়াছড়া উদ্যানের পার্শ্ববর্তী কালাছড়া বন অনেক গুরুত্বপূর্ণ। গত দুই দশকে কালাছড়া বনের পুরোনো মূল্যবান গাছ উজাড় হয়েছে। বনের টিলা কাটা হচ্ছে, গাছগাছালি কেটে চুরি হওয়ার ঘটনা নিত্যনৈমিত্তিক বিষয়। শুকনো মৌসুমে কখনো আগুনেও বনের টিলা পুড়িয়ে ফেলা হচ্ছে। গাছ পাচার, মাগুরছড়া গ্যাস কূপ দুর্ঘটনা, রেল ও সড়ক পথ, লেবু-আনারস বাগান স্থাপন, ভূমি বেদখল, বিভিন্ন পর্যটনকেন্দ্র নির্মাণ ও অত্যধিক দর্শনার্থীর বিচরণের কারণে লাউয়াছড়া বনের অনেক প্রাণী কালাছড়া বনে আশ্রয় নেয়। এখন কালাছড়া বনেও মানুষের অত্যাচার শুরু হয়েছে। কমলগঞ্জের স্থানীয় বাসিন্দা শাহাব উদ্দীন বলেন, দীর্ঘ সময় ধরে কালাছড়া বনের মূল্যবান গাছ চুরির ঘটনা ঘটছে। এতে ফাঁকা হচ্ছে বন। ফলে একদিকে প্রাণীর আবাসস্থল বিলুপ্ত হচ্ছে। এভাবে গাছ চুরি অব্যাহত থাকলে অচিরেই কালাছড়ার পুরো বন ধ্বংস হয়ে যাবে।

 

লাউয়াছড়া বন্যপ্রাণী বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ১৯১৭ সালে আসাম সরকার কমলগঞ্জের পশ্চিম ভানুগাছের ১ হাজার ২৫০ হেক্টর এলাকাকে সংরক্ষিত বন হিসেবে ঘোষণা করে। পরবর্তীতে ১৯২৩ ও ১৯২৫ সালে পর্যায়ক্রমে কালাছড়া ও চাউতলী এলাকাকে সংরক্ষিত বন ঘোষণা করে। ১৯৯৬ সালে ১ হাজার ২৫০ হেক্টর এলাকাকে জাতীয় উদ্যান হিসাবে ঘোষণা করা হয়। লাউয়াছড়ায় ৪৬০ প্রজাতির দুর্লভ উদ্ভিদ ও প্রাণীর মধ্যে ১৬৭ প্রজাতির উদ্ভিদ, চার প্রজাতির উভচর, ছয় প্রজাতির সরীসৃপ, ২৪৬ প্রজাতির পাখি এবং ২০ প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী রয়েছে। আয়তনে ছোট হলেও বিরল প্রজাতির প্রাণীর সংমিশ্রণে এ বনটি জাতীয় পর্যায়ে গুরুত্ব বহন করছে।

 

এ ব্যাপারে কালাছড়া বনবিট কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন বলেন, আগে গাছ চুরি হয়েছে বেশি। এখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এসেছে। এখানে বেশি চুরি হয়েছে আগর আর বাফারজোন বাগানের কিছু গাছ। তবে বাফারজোন বাগান রক্ষায় স্থানীয়দের নিয়ে অনেক সভা হয়েছে। আমরাও সর্বাত্মক চেষ্টা করছি।

 

লাউয়াছড়া বনরেঞ্জ কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম বলেন, আসলে জনবল কম থাকায় আমাদের কিছু সমস্যা হচ্ছে। বিশাল এলাকা দেখভাল করা কঠিন হয়ে পড়ে। তাছাড়া গতরাতেও চোরের দল গাছ কাটছিল। আমাদের লোকজন রাতে ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার করেছে। তিনি মত প্রকাশ করেন বন রক্ষায় সবার সহযোগিতা প্রয়োজন।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo