সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০৯ অপরাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
দোয়ারাবাজারে আ.লীগের ঈদ পুনর্মিলনী ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত সিলেটে বর্ণিল আয়োজনে বর্ষবরণ জৈন্তাপুরে বাংলা নববর্ষ উদযাপন বিএনপি বাঙালি সংস্কৃতিকে সহ্য করতে পারে না: কাদের আসুন, সুন্দর ভবিষ্যৎ বিনির্মাণে একযোগে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে, কাল ঈদ সবার সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করুন: প্রধানমন্ত্রী নিসচা জুড়ী উপজেলা শাখার কমিটি গঠন মহানগর বিএনপির ঈদ শুভেচ্ছা সামর্থ্যানুযায়ী দুঃখি মেহনতী মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে: ড. মোমেন এমপি চাঁদ দেখা যায়নি, ঈদ বৃহস্পতিবার মহানগর আ.লীগের ঈদ শুভেচ্ছা বিএনপি ভুলের চোরাবালিতে নিমজ্জিত: কাদের রাজকুমার’ শাকিবকে যা বললেন ‘প্রিয়তমা’ ইধিকা সৌদি আরবে ঈদের তারিখ ঘোষণা সিলেটে বর্ষবরণের যত আয়োজন সরকার দেশ ও মানুষের কথা সবসময় ভাবে: ড. এ কে আব্দুল মোমেন এমপি নদীর চর কেটে মাটি বিক্রি, ঝুঁকিতে প্রতিরক্ষা বাঁধ পর্যটকদের বরণে প্রস্তুত কমলগঞ্জ জুড়ীতে ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের ঢেউটিন প্রদান লোডশেডিং আর তীব্র পানি সংকটে নাকাল নগরবাসী ঈদের দিন কেমন থাকতে পারে সিলেটের আবহাওয়া হুন্ডি আর প্রচারণার অভাবে কমলো রেমিট্যান্স জগন্নাথপুরে পাঁচ ব্যাংকের এটিএম বুথে নেই টাকা, ভোগান্তিতে গ্রাহকেরা মেধাবী শিক্ষার্থীরা দেশের সম্পদ: মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী সিলিংয়ের ঝুলছিল বিশাল অজগর শ্রীমঙ্গলে নিলামে ১টি ডিম ১৯ হাজার, ১টি আতা ফল ১৫শ টাকা! ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে ‘কিশোর গ্যাং’ মোকাবিলার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর আবারও বাড়ল স্বর্ণের দাম শ্রুতি সম্মাননা পাচ্ছেন বাউল আবদুর রহমান
শুরু হলো বিজয়ের মাস

শুরু হলো বিজয়ের মাস

 

জাগ্রত সিলেট ডেস্ক :: আজ ১ ডিসেম্বর, শুরু হয়েছে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত বিজয়ের মাস। ত্রিশ লাখ শহীদ আর দুই লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমহানির বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতার সাক্ষর এবারের বিজয়ের মাস নানা অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে পালিত হবে।

 

বাংলাদেশের সুদীর্ঘ রাজনৈতিক ইতিহাসে শ্রেষ্ঠতম ঘটনা হলো ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে সশস্ত্র স্বাধীনতা সংগ্রামের এক ঐতিহাসিক ঘটনার মধ্য দিয়ে বাঙ্গালি জাতির কয়েক হাজার বছরের সামাজিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক স্বপ্ন-সাধ পূরণ হয় এ মাসে।

 

বাঙালি জাতির সর্বশ্রেষ্ঠ অর্জন মুক্তিযুদ্ধের অবিস্মরণীয় গৌরবদীপ্ত চূড়ান্ত বিজয় এ মাসের ১৬ ডিসেম্বর অর্জিত হয়। স্বাধীন জাতি হিসেবে সমগ্র বিশ্বে আত্মপরিচয় লাভ করে বাঙালিরা। অর্জন করে নিজস্ব ভূ-খন্ড। আর সবুজের বুকে লাল সূর্য খচিত নিজস্ব জাতীয় পতাকা। ভাষার ভিত্তিতে যে জাতীয়তাবাদ গড়ে উঠেছিল, এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর বিজয়ের মাধ্যমে ঘোষিত স্বাধীনতা পূর্ণতা পায় এ দিনে।

 

বাঙালির হাজার বছরের স্বপ্নপূরণ হবার পাশাপাশি বহু তরতাজা প্রাণ বিসর্জন আর মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে এই অর্জন হওয়ায় বেদনাবিঁধূর এক শোকগাঁথার মাসও এই ডিসেম্বর।

 

এ মাসেই স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি তাদের এদেশীয় দোসর রাজাকার-আলবদর আল শামসদের সহযোগিতায় দেশের মেধা, শ্রেষ্ঠ সন্তান-বুদ্ধিজীবী হত্যার নৃশংস হত্যাযজ্ঞে মেতে ওঠে। সমগ্র জাতিকে মেধাহীন করে দেয়ার এ ধরনের ঘৃণ্য হত্যাযজ্ঞের দ্বিতীয় কোনো নজির বিশ্বে নেই।

 

১৯৭১ সালের ডিসেম্বর মাসের শুরু থেকেই মুক্তিযোদ্ধাদের গেরিলা আক্রমণ আর ভারতীয় মিত্রবাহিনীর সমন্বয়ে গঠিত যৌথবাহিনীর জল, স্থল আর আকাশপথে সাঁড়াশি আক্রমণের মুখে বর্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর পরাজয়ের খবর চারদিক থেকে ভেসে আসতে থাকে। ওই বছরের ১৬ ডিসেম্বর ঢাকার ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) পাকিস্তানি বাহিনী আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয়। যেখান থেকে ৭ মার্চ স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম,’ বলে স্বাধীনতার ডাক দেন, সেখানেই পরাজয়ের দলিলে স্বাক্ষর করেন পাকিস্তানি জেনারেল নিয়াজী। ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত হয়। আর জাতি অর্জন করে হাজার বছরের স্বপ্নের স্বাধীনতা।

 

’৭১ এর ২৫ মার্চ কালরাতে পাকিস্তানি জল্লাদ বাহিনী নিরস্ত্র জনগণের ওপর অতর্কিতে সশস্ত্র আক্রমণ চালিয়ে হাজার হাজার মানুষ হত্যা করে নিরস্ত্র বাঙালির ওপর এক অসম যুদ্ধ চাপিয়ে দেয়। বঙ্গবন্ধু একাত্তরের ২৫ মার্চ রাতে পাক বাহিনীর হাতে গ্রেপ্তার হবার আগে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীনতার ঘোষণা দেন এবং তাঁর ডাকে সাড়া দিয়ে বাঙালি জাতি ঐক্যবদ্ধভাবে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। ২৫ মার্চ রাতেই রাজারবাগ পুলিশ লাইনে সশস্র প্রতিরোধের সম্মুখীন হয় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী। দীর্ঘ ৯ মাসের সশস্ত্র জনযুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদ এবং ২ লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমহানির বিনিময়ে ১৬ ডিসেম্বর জাতির চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত হয়।

 

মহান এ বিজয়ের মাস উদযাপনে জাতীয় কর্মসূচির পাশাপাশি বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠনের পক্ষ থেকে বিস্তারিত কর্মসূচি নেয়া হয়েছে।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo