সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১১:০০ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
দোয়ারাবাজারে আ.লীগের ঈদ পুনর্মিলনী ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত সিলেটে বর্ণিল আয়োজনে বর্ষবরণ জৈন্তাপুরে বাংলা নববর্ষ উদযাপন বিএনপি বাঙালি সংস্কৃতিকে সহ্য করতে পারে না: কাদের আসুন, সুন্দর ভবিষ্যৎ বিনির্মাণে একযোগে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে, কাল ঈদ সবার সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করুন: প্রধানমন্ত্রী নিসচা জুড়ী উপজেলা শাখার কমিটি গঠন মহানগর বিএনপির ঈদ শুভেচ্ছা সামর্থ্যানুযায়ী দুঃখি মেহনতী মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে: ড. মোমেন এমপি চাঁদ দেখা যায়নি, ঈদ বৃহস্পতিবার মহানগর আ.লীগের ঈদ শুভেচ্ছা বিএনপি ভুলের চোরাবালিতে নিমজ্জিত: কাদের রাজকুমার’ শাকিবকে যা বললেন ‘প্রিয়তমা’ ইধিকা সৌদি আরবে ঈদের তারিখ ঘোষণা সিলেটে বর্ষবরণের যত আয়োজন সরকার দেশ ও মানুষের কথা সবসময় ভাবে: ড. এ কে আব্দুল মোমেন এমপি নদীর চর কেটে মাটি বিক্রি, ঝুঁকিতে প্রতিরক্ষা বাঁধ পর্যটকদের বরণে প্রস্তুত কমলগঞ্জ জুড়ীতে ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের ঢেউটিন প্রদান লোডশেডিং আর তীব্র পানি সংকটে নাকাল নগরবাসী ঈদের দিন কেমন থাকতে পারে সিলেটের আবহাওয়া হুন্ডি আর প্রচারণার অভাবে কমলো রেমিট্যান্স জগন্নাথপুরে পাঁচ ব্যাংকের এটিএম বুথে নেই টাকা, ভোগান্তিতে গ্রাহকেরা মেধাবী শিক্ষার্থীরা দেশের সম্পদ: মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী সিলিংয়ের ঝুলছিল বিশাল অজগর শ্রীমঙ্গলে নিলামে ১টি ডিম ১৯ হাজার, ১টি আতা ফল ১৫শ টাকা! ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে ‘কিশোর গ্যাং’ মোকাবিলার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর আবারও বাড়ল স্বর্ণের দাম শ্রুতি সম্মাননা পাচ্ছেন বাউল আবদুর রহমান
হবিগঞ্জে চলছে ফসল ঘরে তোলার উৎসব

হবিগঞ্জে চলছে ফসল ঘরে তোলার উৎসব

 

কিবরিয়া চৌধুরী, হবিগঞ্জ :: প্রাকৃতিক কোনো দুর্যোগ যদি না আসে তাহলে চলতি বছর রোপা আমনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করে কৃষকের গোলায় ধান উঠবে বলে আশা করছে জেলা কৃষি বিভাগ।

 

হবিগঞ্জ জেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর জেলার ৯টি উপজেলায় রোপা আমনের জমি চাষ করা হয়েছে ৮৮ হাজার ২৫৮ হেক্টর। সে হিসাবে এ বছর রোপা আমনের ধান উঠবে ৬১ লাখ ১৭ হাজার ৭২৫ মণ। যার বাজার মূল্য হবে ৭৬৪ কোটি টাকা।

 

ইতোমধ্যে জেলার বানিয়াচং, আজমিরীগঞ্জ, লাখাই, বাহুবল, মাধবপুর এবং নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন হাওরে ধান কাটা শুরু হয়েছে। ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষাণ-কৃষাণীরা। আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে কৃষকরা দ্রুততম সময়ের মধ্যে গোলায় ধান তোলার চেষ্টা করছেন।

 

কৃষক আব্দুল মজিদ বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগে কিছুটা ক্ষতি হলেও এ বছর ফলন ভালো হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় কিংবা অন্য কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ যদি আর না আসে তাহলে দ্রুততম সময়ের মধ্যে রোপা আমন ঘরে তুলতে পারবো।

 

হবিগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা আশেক পারভেজ জানান, রোপা আমন মৌসুমে হাওরে চাষ করা আগাম জাতের ধান কাটা শুরু হয়েছে। যে জমিগুলোয় ব্রি ধান চাষ করা হয়েছিল, সেগুলো এখন কাটা হচ্ছে। এগুলো শেষ হওয়ার আগেই শুরু হবে হাইব্রিড ধান তোলা। এ পর্যন্ত প্রায় ২৫ শতাংশ ধান কাটা শেষ হয়েছে। চলতি বছর প্রতি হেক্টর জমি থেকে সোয়া ৩ মেট্রিক টন হিসেবে জেলায় ২ লাখ ৪৪ হাজার ৭০৯ টন ধান তোলার সম্ভাবনা আছে।

 

তিনি জানান, এবার সরকার প্রতি মণ ধানের মূল্য ১ হাজার ২০০ টাকা নির্ধারণ করেছে। তবে বর্তমানে জেলার বিভিন্ন বাজারে ১ হাজার ৫০ থেকে ১ হাজার ১৫০ টাকা দরে ধান ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে। সরকারি দামে হবিগঞ্জ জেলায় লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী ধান উৎপাদন হবে প্রায় ৭৩৪ কোটি ১২ লাখ ৭০ হাজার টাকার।

 

তিনি আরও জানান, ইতোমধ্যে কৃষক পর্যায়ে ‘কৃষকের অ্যাপ’ এর মাধ্যমে অনলাইনে নিবন্ধন প্রক্রিয়া চলমান আছে। এ নিবন্ধন কার্যক্রম আগামী ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত চলবে। প্রত্যেক কৃষক নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে অনলাইন লটারির মাধ্যমে নির্বাচিত হলে তিনি সর্বোচ্চ ৩ মেট্রিক টন ধান সরকারি খাদ্য গুদামে সরবরাহ করতে পারবেন। চলতি মৌসুমে প্রতি কেজি ধানের সংগ্রহ মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৩০ টাকা।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo