বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৫০ অপরাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
মার্চে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানি ৫৬৫ জনের সিলেটের চার উপজেলায় লড়বেন ৬০ জন প্রার্থী শান্তিগঞ্জে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার থাইল্যান্ড যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী সিলেটে শিলাবৃষ্টির আভাস মৌলভীবাজার পৌরসভার দুটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমিকের হুমকিতে নিরুপায় স্বামী কারিতাস বাংলাদেশ মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে: এম এ মান্নান এমপি কোম্পানীগঞ্জে শাহিন হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন হাঁসে ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে বৃদ্ধ নিহত আমাদের লক্ষ্য খাদ্য নিরাপত্তা ও পুষ্টি: প্রধানমন্ত্রী সুনামগঞ্জে বোরোর বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি নবীগঞ্জে বাস চাপায় ২জন নিহত নদী যেন ময়লার ভাগাড়, দূষিত হচ্ছে পরিবেশ সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন সংগীতশিল্পী পাগল হাসান ধান কাটানো নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষকেরা জুড়ীতে জামায়াত নেতার মনোনয়ন বাতিল বালাগঞ্জে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত শাবিতে মুজিবনগর দিবস পালিত জুড়ীতে মুজিবনগর দিবস উদযাপন মধ্যপ্রাচ্যের উত্তেজনা নিয়ে মন্ত্রীদের তীক্ষ্ণ নজর রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ঝালকাঠিতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত বেড়ে ১৪ ঈদের ছুটিতে লাউয়াছড়ায় সর্বাধিক রাজস্ব আয় চায়ের ন্যায্যমূল্য না পেয়ে হতাশ বাগান মালিকরা শ্রীমঙ্গলে তাপদাহে মানুষের নাভিশ্বাস র‍্যাবের হাতে গ্রেপ্তার মাদক ব্যবসায়ী পুলিশের ঘুষিতে আসামির মৃত্যু! সিলেটকে স্মার্ট সিটি হিসেবে গড়তে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে: আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী বৃষ্টিতে আরব আমিরাতে বন্যা, দুবাই বিমানবন্দরে ফ্লাইট চলাচল বন্ধ শিল্পী সমিতির নির্বাচনে লড়ছেন যেসব তারকা
মাধবপুরে গড়ে উঠেছে অবৈধ সিসা তৈরির কারখানা

মাধবপুরে গড়ে উঠেছে অবৈধ সিসা তৈরির কারখানা

 

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি :: হবিগঞ্জের মাধবপুরে বন্ধ হওয়ার কিছুদিন পর আবারও গড়ে উঠেছে অবৈধ সিসা তৈরির কারখানা। জাবেদ ও বাবুল নামে প্রভাবশালী দুই ব্যক্তি পুরনো ব্যাটারি পুড়িয়ে সিসা তৈরি করে যাচ্ছেন। এতে পরিবেশের মারাত্মক বিপর্যয় ঘটেছে।

 

কয়েক মাস আগে এ বিষয়ে একাধিক গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পরে কারখানাটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। তবে এখন আবার উপজেলার ছাতিয়াইন ইউনিয়নের ছাতিয়াইন-বাঘাসুরা রাস্তার ইউনিয়ন পরিষদের পাশের এলাকায় কারখানা কর্তৃপক্ষ দাপটের সাথে চালিয়ে যাচ্ছে তাদের অবৈধ ব্যবসা।

 

কারখানার ব্যাটারির এসিডের গন্ধে স্থানীয় লোকজন অতিষ্ঠ। এরপরও প্রভাবশালী ওই দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে কথা বলার সাহসও পাচ্ছেন না কেউ। এছাড়া কারখানা থেকে নির্গত ক্ষতিকর রাসায়নিক পদার্থ এবং কালো ধোঁয়া পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্যের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে।

 

হবিগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. নুরুল হক বলেন, পুরনো ব্যাটারি পুড়িয়ে সিসা বের করার কারখানার ধোঁয়া শিশু ও বয়স্কদের মারাত্মক ক্ষতি করে। এর সংস্পর্শে এলে এই কারখানার পার্শ্ববর্তী এলাকার শিশুরা বড় হলে মানসিক ও শারীরিকভাবে প্রতিবন্ধী হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এছাড়াও শিশু ও বয়স্কসহ যেকোনো বয়সের মানুষ হতে পারেন শ্বাসকষ্টের রোগী। ব্যাটারি পুড়িয়ে সিসা তৈরির ধোঁয়া মানবদেহে প্রবেশ করলে মাথাব্যথা, শ্বাসকষ্ট, ফুসফুসে ক্যানসার, মস্তিষ্কের কোষের ক্ষতিসহ নানা সমস্যা হতে পারে। এমনকি মানসিক বিকৃতি ও রক্তশূন্যতাও হতে পারে। প্রভাব পড়তে পারে লিভার ও কিডনিতেও।

 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ছাতিয়াইন-বাঘাসুরা রাস্তার ইউনিয়ন পরিষদের পাশে ছাকুচাইল ও পিয়াম গ্রামের রাস্তার পাশে টিনের বেড়া দিয়ে ভেতরে পুরনো ব্যাটারি পুড়িয়ে সিসা তৈরির কারখানাটি গড়ে উঠেছে। ওই কারখানায় ১৫-২০ জন শ্রমিক ও কর্মচারী পুরনো ব্যাটারি ভেঙে প্লেট আলাদা করছেন। কারখানার বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে পরিত্যক্ত ব্যাটারির বর্জ্য, প্লাস্টিক, কার্বন ও ক্ষতিকারক বিভিন্ন ধরণের পদার্থ। শ্রমিকদের কাজের জন্য নেই কোনো নিরাপত্তা সরঞ্জামও। এছাড়া প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড, ট্রেড লাইসেন্স, কলকারখানা অধিদপ্তরের অনুমতি, পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ও ব্যাটারি পুড়িয়ে সিসা তৈরির নিরাপদ চুল্লিও নেই।
সালাম নামে কারখানার এক শ্রমিক বলেন, এখানকার অধিকাংশ শ্রমিকের বাড়ি উত্তরবঙ্গে। দিনের বেলায় ব্যাটারি ভাঙা হয়, রাতে পুড়িয়ে সিসা তৈরি করা হয়। প্রত্যেক শ্রমিকের বেতন ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা। আর ব্যাটারি পোড়ানোর কোনো চুল্লি নেই, তাই উন্মুক্ত স্থানেই পোড়ানো হয়।

 

কারখানার মালিক জাবেদ ও বাবুলের সাথে কথা বললে তারা জানান, এক সপ্তাহ হয়েছে কারখানাটি পুনরায় চালু করেছেন। এখন যদি আবার পত্র-পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয় তাহলে তারা বন্ধ করে দেবেন।

 

এলাকাবাসীর অভিযোগ, প্রতিদিন রাত ১২টার দিকে ব্যাটারি পুড়িয়ে সিসা তৈরি করা হয়। এতে এলাকাবাসীর শ্বাস-প্রশ্বাসে সমস্যা হয়। এসময় গন্ধে ঘরে থাকা যায় না। এছাড়া পোড়ানোর স্থানে কোনো ছাউনি না থাকায় বৃষ্টির পানির সঙ্গে বিষাক্ত বর্জ্য পুরো এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। পাশের ফসলি জমি ও ফসলেরও ক্ষতি হচ্ছে।

 

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য তোফাজ্জল সোহেল বলেন, আমি জানতাম কারখানাটি বন্ধ হয়ে গেছে। এখন পুনরায় চালু হয়েছে জেনে অবাক হলাম। ব্যাটারি পুড়িয়ে সিসা তৈরির কারখানা স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকারক। এতে করে মানুষের শরীরে বিভিন্ন ধরণের রোগ ছড়িয়ে পড়ছে, নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ ও ফসলি জমি। প্রাণবৈচিত্র্য ও বাস্তুতন্ত্র তছনছ করে দিচ্ছে। এসব অবৈধ ব্যাটারি কারখানার মাধ্যমে মানুষসহ প্রাণীর শরীরে ঢুকছে সিসার বিষ, প্রতিবেশ ব্যবস্থায় ঘটছে গোলমাল। পুরো মাধবপুর এলাকাটাই এখন শিল্প বর্জ্যে দূষিত হয়ে গেছে। আর এর প্রভাব ছড়িয়ে পড়ছে পুরো জেলায়। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার্থে সুস্থ পৃথিবীর জন্য অবিলম্বে এই শিল্প বর্জ্য বন্ধ করা উচিত।

 

এ বিষয়ে মাধবপুরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনজুর আহসান বলেন, এর আগে সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পর আমরা কারখানাটি বন্ধ করে দিয়েছিলাম এখন যদি আবার সেটি চালু করে থাকে, তাহলে আমরা আবারও তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo