শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৫৩ অপরাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
সিলেটে চোরাই মোটরসাইকেলসহ যুবক আটক একসঙ্গে ৬ সন্তানের জন্ম, আনন্দে আত্মহারা মা-বাবা ওসমানীনগরে বাস-ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত ২ শান্তিগঞ্জে কোরআন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের পুরস্কার বিতরণ অন্যান্য খেলার পাশাপাশি দেশি খেলাকে সুযোগ দিন: প্রধানমন্ত্রী আবারও শ্রেষ্ঠ ওসি জুড়ীর মাইন উদ্দিন দলের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে নির্বাচনে বিএনপির ৬ নেতা প্রেস কাউন্সিলের সনদ ফেরত দিয়ে সুনামগঞ্জে ১১ সাংবাদিকের প্রতিবাদ ঈদযাত্রায় সড়কে প্রাণ গেছে ৪০৭ জনের বজ্রপাত আতঙ্কে হাওরবাসী কুলাউড়ায় ট্রেনের কাটা পড়ে নারীর মৃত্যু দুইদিন পর চালু হলো তামাবিল স্থলবন্দর ইজারা নিয়ে সংঘর্ষের আশঙ্কা, ছাতকে ১৪৪ ধারা জারি তাপপ্রবাহের কারণে স্কুল-কলেজ সাত দিন বন্ধ মার্চে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানি ৫৬৫ জনের সিলেটের চার উপজেলায় লড়বেন ৬০ জন প্রার্থী শান্তিগঞ্জে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার থাইল্যান্ড যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী সিলেটে শিলাবৃষ্টির আভাস মৌলভীবাজার পৌরসভার দুটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমিকের হুমকিতে নিরুপায় স্বামী কারিতাস বাংলাদেশ মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে: এম এ মান্নান এমপি কোম্পানীগঞ্জে শাহিন হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন হাঁসে ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে বৃদ্ধ নিহত আমাদের লক্ষ্য খাদ্য নিরাপত্তা ও পুষ্টি: প্রধানমন্ত্রী সুনামগঞ্জে বোরোর বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি নবীগঞ্জে বাস চাপায় ২জন নিহত নদী যেন ময়লার ভাগাড়, দূষিত হচ্ছে পরিবেশ সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন সংগীতশিল্পী পাগল হাসান ধান কাটানো নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষকেরা
শাল্লা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স
১৮ বছর ধরে অযত্ন-অবহেলায় পড়ে আছে এক্স-রে মেশিন

শাল্লা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স
১৮ বছর ধরে অযত্ন-অবহেলায় পড়ে আছে এক্স-রে মেশিন

 

শাল্লা প্রতিনিধি :: হাওরের দ্বীপ খ্যাত ভাটির জনপদ সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলা। এ উপজেলার ৫০ শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বারান্দায় অযত্ন-অবহেলায় প্রায় ১৮ বছর ধরে পড়ে আছে সরকারি এক্স-রে মেশিন। সবদিকে অবহেলিত এ উপজেলায় স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে ২০০৫ সালে প্রায় ১৯ লাখ টাকা মূল্যে এ মেশিনটি ক্রয় করেছিল সরকার। কিন্তু এত দামি মেশিনটি বারান্দায় থাকতে থাকতে নষ্ট হয়ে গেছে।

 

সরেজমিনে দেখা যায়, দীর্ঘদিন ধরে মেশিনটি অরক্ষিত, অযত্ন-অবহেলায় পড়ে রয়েছে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পুরাতন ভবনের দক্ষিণ ফটকের বারান্দায়। দীর্ঘদিন এক্স-রে মেশিন বক্সের ভেতরে প্যাকিং করা থাকলেও এখন সেটি আর সে অবস্থায় নেই। বক্সটি ভেঙে মেশিনের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ নানা জায়গায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে। শুধু তাই নয়, সেখানে রাখা হয়েছে বর্জ্য পদার্থ রাখার পাত্র।

 

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ছাড়া আর কোথাও এক্স-রে করার সুযোগ না থাকায় বিড়ম্বনায় পড়ছেন চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা। বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা নিতে আসা রোগী ও তাদের আত্মীয়-স্বজনদেরে বলতে শোনা যায়, সরকারি জিনিস বলেই এর কোনো হিসাব নেই। এত টাকার গুরুত্বপূর্ণ এ মেশিন বহু বছর ধরে বারান্দায় থেকে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, যেন দেখার কেউ নেই।

 

এই হাসপাতাল চালু হওয়ার পর থেকে আজ পর্যন্ত এক্স-রে মেশিনের সেবা চালু হয়নি। ১৮ বছর আগে আসা এক্স-রে মেশিনটি এখনো কোনো কাজে না আসায় অবহেলিত শাল্লাবাসী। নাগরিকের মৌলিক অধিকার স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত হাওরপাড়ের কয়েক লক্ষাধিক মানুষ। হাসপাতাল থাকলেও কোনোরকম পরীক্ষা-নিরীক্ষার ব্যবস্থা না থাকায় প্রত্যন্ত অঞ্চলসহ উপজেলাবাসী চরম ভোগান্তিতে পড়ছেন স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে। কোনোরকম পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন হলে ছুটতে হয় হবিগঞ্জের আজমিরিগঞ্জ নতুবা সুনামগঞ্জের দিরাইসহ জেলা কিংবা বিভাগীয় শহরে। উপজেলা সদর থেকে উভয় উপজেলার দূরত্ব প্রায় ২০ কিলোমিটার। হেমন্তে মোটরসাইকেল ও বর্ষায় নৌকা দিয়েই চলে রোগী আনা-নেয়া। যত আশঙ্কাজনক রোগীই হোক না কেন, এর কোনো বিকল্প নেই শাল্লার যোগাযোগ ব্যবস্থায়।

 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ২০০৫ সালের মে মাসে ভাটি অঞ্চলের এ জনপদের মানুষের সঠিক স্বাস্থ্যসেবার জন্য এক্স-রে মেশিনটি সরবরাহ করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। মেশিন এলে কি হবে, দেড় যুগেও সেটি কোনো কক্ষে স্থাপন করা হয়নি। এক্স-রে মেশিন আসার পর এলাকার জনগণের মধ্যে আনন্দ দেখা দিয়েছিল। তারা ভেবেছিলেন এবার চিকিৎসাসেবায় নতুন সংযোজন হলো। কিন্তু মানুষের সেই আশা আর পূরণ হয়নি এত বছরেও। মেশিনটি সচল না হওয়ায় চিকিৎসা নিতে আসা লোকজনকে খুবই দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। অথচ চোখের সামনে এত টাকার একটি গুরুত্বপূর্ণ মেশিন নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এর সমাধনের জন্য কেউ কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না। যদিও সম্প্রতি শোনা যাচ্ছে একজন প্রকৌশলী এনে মেশিনটি ঠিকঠাক করে কাজে লাগানোর চিন্তা করছে কর্তৃপক্ষ।

 

স্থানীয় সামাজিক সংগঠক রনি শেখ জাগ্রত সিলেটকে বলেন, সরকারের এত টাকা মূল্যের মেশিনটি অনেকদিন এভাবে অযত্ন-অবহেলায় পড়ে রয়েছে এটা খুবই দুঃখজনক। দ্রুততম সময়ের মধ্যে মেশিনটি চালু করে হাওরপাড়ের মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবি জানাই।

 

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. যশোবন্ত ভট্টাচার্য বলেন, বৈদ্যুতিক লাইনে সমস্যা। সেটা ঠিক করার কাজ চলছে। এক্স-রে মেশিন চালু করে দেখা হবে এটি নষ্ট নাকি ভালো। নষ্ট হলে নতুন আরেকটার জন্য চাহিদা দেয়া হবে।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo