সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৪১ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
দোয়ারাবাজারে আ.লীগের ঈদ পুনর্মিলনী ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত সিলেটে বর্ণিল আয়োজনে বর্ষবরণ জৈন্তাপুরে বাংলা নববর্ষ উদযাপন বিএনপি বাঙালি সংস্কৃতিকে সহ্য করতে পারে না: কাদের আসুন, সুন্দর ভবিষ্যৎ বিনির্মাণে একযোগে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে, কাল ঈদ সবার সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করুন: প্রধানমন্ত্রী নিসচা জুড়ী উপজেলা শাখার কমিটি গঠন মহানগর বিএনপির ঈদ শুভেচ্ছা সামর্থ্যানুযায়ী দুঃখি মেহনতী মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে: ড. মোমেন এমপি চাঁদ দেখা যায়নি, ঈদ বৃহস্পতিবার মহানগর আ.লীগের ঈদ শুভেচ্ছা বিএনপি ভুলের চোরাবালিতে নিমজ্জিত: কাদের রাজকুমার’ শাকিবকে যা বললেন ‘প্রিয়তমা’ ইধিকা সৌদি আরবে ঈদের তারিখ ঘোষণা সিলেটে বর্ষবরণের যত আয়োজন সরকার দেশ ও মানুষের কথা সবসময় ভাবে: ড. এ কে আব্দুল মোমেন এমপি নদীর চর কেটে মাটি বিক্রি, ঝুঁকিতে প্রতিরক্ষা বাঁধ পর্যটকদের বরণে প্রস্তুত কমলগঞ্জ জুড়ীতে ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের ঢেউটিন প্রদান লোডশেডিং আর তীব্র পানি সংকটে নাকাল নগরবাসী ঈদের দিন কেমন থাকতে পারে সিলেটের আবহাওয়া হুন্ডি আর প্রচারণার অভাবে কমলো রেমিট্যান্স জগন্নাথপুরে পাঁচ ব্যাংকের এটিএম বুথে নেই টাকা, ভোগান্তিতে গ্রাহকেরা মেধাবী শিক্ষার্থীরা দেশের সম্পদ: মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী সিলিংয়ের ঝুলছিল বিশাল অজগর শ্রীমঙ্গলে নিলামে ১টি ডিম ১৯ হাজার, ১টি আতা ফল ১৫শ টাকা! ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে ‘কিশোর গ্যাং’ মোকাবিলার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর আবারও বাড়ল স্বর্ণের দাম শ্রুতি সম্মাননা পাচ্ছেন বাউল আবদুর রহমান
৩২ কোটি টাকার সৌর প্রকল্পে অন্ধকার

৩২ কোটি টাকার সৌর প্রকল্পে অন্ধকার

 

শাল্লা প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলা শতভাগ বিদ্যুতায়িত উপজেলা। তবে গত ২০২২ সালের ভয়াবহ বন্যার পর থেকে অন্ধকারে উপজেলার হবিবপুর ইউনিয়নের পাঁচটি গ্রাম। আগুয়াই, মৌরাপুর, দত্তপাড়া, শাসখাই ও বিলপুর এই পাঁচ গ্রামে বিদ্যুৎ না থাকায় বিপাকে পড়েছে হাজারো মানুষ। উপজেলার এই পাঁচ গ্রাম রহিম আফরোজ সোলার বিদ্যুৎ প্রকল্পের আওতায় ছিল। তখনও সারাদিনে ৩-৪ ঘণ্টা বিদ্যুৎ পেত এলাকাবাসী।

 

ভয়াবহ বন্যায় ৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে স্থাপিত সোলার প্রকল্পটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। প্রকল্পটি পুনরায় চালু না করায় এই ৩২ কোটি টাকার প্রকল্প এলাকার মানুষ অন্ধকারে জীবন-যাপন করছেন। তবে ২০২২ সালের বন্যায় সকল কিছু নষ্ট হয়ে যাওয়ায় পুনরায় মেরামত করতে প্রচুর ব্যয়বহুল বলে জানান কর্তৃপক্ষ।

 

জানা যায়, বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট ও বন মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে ঠিকাদারি সোলার প্রতিষ্ঠান রহিম আফরোজ ২০১১ সালে ৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে ৪০০ কিলোওয়াট সোলার বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কাজ পায়। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান রহিম আফরোজের মাধ্যমে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড। ২০১৭ সালের ১০ ডিসেম্বর ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সোলার প্রকল্পের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু কোটি কোটি টাকার এই প্রকল্প দিয়ে কর্তৃপক্ষ কোনো ধরনের সফলতা দেখাতে পারেনি।

 

আবার ২০১৭ সাল থেকে ২০২২ সালের ভয়াবহ বন্যার পূর্ব পর্যন্ত সরকারের দেওয়া রহিম আফরোজ সৌর বিদ্যুতের আওতায় ছিলেন এসব গ্রামের লোকজন। ফলে এই এলাকায় আরেকটি প্রকল্প থাকায় পল্লী বিদ্যুতের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন তারা। দিরাই পিডিবি অফিস সূত্রে জানা যায়, বন্যায় ক্ষতির পরিমাণ ব্যাপক। এটি মেরামত করতে হলে অনেক টাকা বরাদ্দ প্রয়োজন। তাই এটি আর পুনরায় চালু করা সম্ভব নয়।

 

এদিকে সোলার থেকে বিদ্যুৎ পাওয়ার সম্ভাবনা না থাকায় এবং পল্লী বিদ্যুৎ থেকে সংযোগের আশায়, দিরাই পিডিবি অফিসে সৌর বিদ্যুৎ প্রকল্পের বকেয়া বিলসহ সব মিটার জমা দিয়েছে গ্রাহকেরা। সোলার প্রকল্পের বকেয়া বিলসহ মিটার জমা দিলে পল্লী বিদ্যুতের সংযোগ দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে আসছিলেন দিরাই পিডিবি অফিস। কিন্তু পিডিবি কর্তৃপক্ষের কথা ও কাজে কোনো ধরনের মিল নেই বলে জানান এলাকাবাসী। তবে দিরাই পিডিবি অফিসের দাবি কিছুসংখ্যক গ্রাহক এখনো বকেয়া পরিশোধ করেনি।

 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দীর্ঘদিন বিদ্যুৎ না থাকায় এলাকার ব্যবসা-বাণিজ্য, শিক্ষার্থীদের পড়াশোনাসহ সর্বক্ষেত্রে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে এলাকাবাসীকে। স্থানীয়রা বলছেন, এখানে শুধু শুধু সরকারের অর্থের অপব্যবহার করা হয়েছে। সরকারের ৩২ কোটি টাকার প্রকল্প স্থানীয়দের কোনো কাজেই আসেনি বলে জানান তারা।

 

এ বিষয়ে হবিবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুবল চন্দ্র দাস বলেন, এই পাঁচ গ্রামের মানুষ বিদ্যুতের জন্য চরম সংকটময় সময় অতিক্রম করছে। আমরা এলাকাবাসীর স্বাক্ষর নিয়ে একটা রেজুলেশন তৈরি করেছি সেটা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে জমা দেব। আশা করছি দ্রুত সময়ের মধ্যেই সেখানে পল্লী বিদ্যুতের লাইন পাওয়া যাবে।

 

সৌর সোলার প্রকল্পটি পিডিবি’র অধীনে সংশ্লিষ্ট দায়িত্বে থাকায় দিরাই শাখার আবাসিক প্রকৌশলী পরশুরাম তালুকদারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মাসখানেক হয় আমি এখানে এসেছি। এ ব্যাপারে আমার সবকিছু জানা নেই।

 

এ বিষয়ে পল্লী বিদ্যুৎ দিরাই সাব-জোনাল অফিসের এজিএম নুরুল ইসলাম বলেন, পল্লী বিদ্যুতের সংযোগ সেখানে দেওয়া যাচ্ছে না। এটা মন্ত্রণালয়ের ব্যাপার। মন্ত্রণালয়ের অনুমতি সাপেক্ষে আমরা বিদ্যুতের লাইন মেইনটেইন করে সংযোগ দিতে পারব।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo