শুক্রবার, ২১ Jun ২০২৪, ০৭:৪০ অপরাহ্ন

নোটিশ :
সিলেট বিভাগসহ দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীরা আমাদের পত্রিকার ইমেইল ঠিকানায় পূর্নাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত প্রেরণের আহবান জানানো যাচ্ছে। এছাড়া প্রবাসের বিভিন্ন দেশে আমরা প্রতিনিধি নিয়োগ দিচ্ছি।
শিরোনাম :
বাকিতে বিড়ি না দেওয়ায় ছুরিকাঘাতে যুবককে হত্যা বড়লেখায় বন্যার পানিতে ডুবে স্কুলছাত্রীর মৃত্যু সিলেট বিভাগের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত গোয়াইনঘাট থেকে ১৪৩ বস্তা চিনিসহ আটক ১ বিয়ানীবাজারে চিনি ছিনতাইয়ের ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার পবিত্র ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা জানালেন প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরী আসুন ঈদুল আজহার ত্যাগের চেতনায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী বৃষ্টিতে নাজেহাল কামারপাড়া রাত পোহালেই ঈদ কামরানকে সিলেটবাসী এখনও ভুলতে পারেনি- প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরী ঈদে সুস্থ থাকার টিপস সবুজ বাংলাদেশ গড়ে তুলুন: প্রধানমন্ত্রী ‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক’ ধ্বনিতে মুখর আরাফাত ময়দান সার্বিক নিরাপত্তাব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে: সিসিক মেয়র ঈদের দিন সিলেটে হতে পারে বৃষ্টি সিলেটে বিপৎসীমার উপরে নদ-নদীর পানি, আবারও বন্যার শঙ্কা সুনামগঞ্জে পাহাড়ি ঢলে বাড়ছে নদ-নদীর পানি পর্যটকদের স্বাগত জানাতে প্রস্তুত চুনারুঘাট সিলেটে কখন কোথায় ঈদের জামাত জগন্নাথপুরে পুলিশের পক্ষ থেকে ঈদ উপহার বিতরণ শপথ নিলেন ১০ উপজেলার নবনির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা ফাঁদে ফেলে প্রবাসী তরুণীর ভিডিও ধারণ, যুবক গ্রেপ্তার এমপি ইমরান আহমদের পক্ষ থেকে ঈদ উপহার বিতরণ জামালগঞ্জে ৭ মাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না ১৯ শিক্ষক-কর্মচারী সিলেটে আবাসিক হোটেল থেকে আটক ৬ ওসমানীনগরে মাছ ধরতে গিয়ে জেলে নিখোঁজ গোয়াইনঘাটে ভাইয়ের হাতে ভাই খুন জৈন্তাপুরে ১১ ট্রাক ভারতীয় চিনি জব্দ মাধবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় পথচারী নিহত নগরীর মেজরটিলায় জমজমাট পশুর হাট
সংলাপের মাধ্যমে রাজনৈতিক মতভেদ সমাধান অসাধ্য নয়: প্রধান নির্বাচন কমিশনার

সংলাপের মাধ্যমে রাজনৈতিক মতভেদ সমাধান অসাধ্য নয়: প্রধান নির্বাচন কমিশনার

 

জাগ্রত সিলেট ডেস্ক :: নির্বাচন প্রশ্নে দেশের সার্বিক রাজনৈতিক নেতৃত্বের মধ্যে মতভেদ পরিলক্ষিত হচ্ছে উল্লেখ করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, মতভেদ থেকে সংঘাত ও সহিংসতা হলে তা থেকে সৃষ্ট অস্থিতিশীলতা নির্বাচনপ্রক্রিয়ায় বিরূপ প্রভাব বিস্তার করতে পারে। মতৈক্য ও সমাধান প্রয়োজন।

 

সিইসি আরও বলেন, ‘আমি নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে সকল রাজনৈতিক দলকে বিনীতভাবে অনুরোধ করব সংঘাত ও সহিংসতা পরিহার করে সদয় হয়ে সমাধান অন্বেষণ করতে।’

 

নির্বাচন কমিশন নির্বাচনে সব দলের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ ও প্রতিদ্বন্দ্বিতাকে সর্বদা স্বাগত জানাবে উল্লেখ করে সিইসি বলেন, ‘পারস্পরিক প্রতিহিংসা, অবিশ্বাস ও অনাস্থা পরিহার করে সংলাপের মাধ্যমে সমঝোতা ও সমাধান অসাধ্য নয়।’

 

বুধবার সন্ধ্যায় দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে সিইসি এসব কথা বলেন। তিনি ঘোষণা করেন, আগামী ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ হবে। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ৩০ নভেম্বর। মনোনয়নপত্র বাছাই হবে ১ থেকে ৪ ডিসেম্বর। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১৭ ডিসেম্বর। প্রতীক বরাদ্দ ১৮ ডিসেম্বর।

 

রাজনৈতিক মতানৈক্যের বিষয়টি উঠে আসে জাতির উদ্দেশে দেওয়া সিইসির ভাষণেও। তিনি বলেন, অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক ও উৎসবমুখর নির্বাচনের জন্য কাঙ্ক্ষিত অনুকূল রাজনৈতিক পরিবেশের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। কিন্তু নির্বাচন প্রশ্নে, বিশেষত নির্বাচনের প্রাতিষ্ঠানিক পদ্ধতির প্রশ্নে, দীর্ঘ সময় ধরে দেশের সার্বিক রাজনৈতিক নেতৃত্বে মতভেদ পরিলক্ষিত হচ্ছে।

 

সিইসি বলেন, বহুদলীয় রাজনীতিতে মতাদর্শগত বিভাজন থাকতেই পারে। কিন্তু মতভেদ থেকে সংঘাত ও সহিংসতা হলে তা থেকে সৃষ্ট অস্থিতিশীলতা নির্বাচনপ্রক্রিয়ায় বিরূপ প্রভাব বিস্তার করতে পারে।

 

সংলাপের মাধ্যমে সমঝোতা ও সমাধান অসাধ্য নয় উল্লেখ করে সিইসি বলেন, ‘পরমতসহিষ্ণুতা, পারস্পরিক আস্থা, সহনশীলতা ও সহমর্মিতা টেকসই ও স্থিতিশীল গণতন্ত্রের জন্য আবশ্যকীয় নিয়ামক।’

 

জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে সিইসি উল্লেখ করেন, সরকার আসন্ন সংসদ নির্বাচনকে সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক ও শান্তিপূর্ণ করার লক্ষ্যে সুস্পষ্ট প্রতিশ্রুতি বারবার ব্যক্ত করেছে। কমিশনও তার আয়ত্তে থাকা সর্বোচ্চ সামর্থ্য দিয়ে এবং সরকার থেকে আবশ্যক সব সহায়তা নিয়ে নির্বাচনকে অবাধ, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ করার বিষয়ে সততা, নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করবে।

 

সংবিধানে সংসদের মেয়াদ পূর্তির আগের ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন আয়োজনের সুস্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে উল্লেখ করে সিইসি বলেন, এ নির্দেশনা নির্বাচন কমিশন সরকারের নির্বাহী বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তা নিয়ে সম্পন্ন করে থাকে।

 

সিইসি উল্লেখ করেন, নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক হতে পারে কেবল সংশ্লিষ্ট প্রক্রিয়ায় সংশ্লিষ্ট সবার সমন্বিত সহযোগিতা ও অংশগ্রহণের মাধ্যমেই। রাজনৈতিক দলগুলো গণতান্ত্রিক চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে প্রার্থী দিয়ে নির্বাচনে কার্যকরভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলে কেন্দ্রে কেন্দ্রে ভারসাম্য প্রতিষ্ঠিত হয়, নির্বাচন আরও পরিশুদ্ধ ও অর্থবহ হয়। তাতে জনমতেরও শুদ্ধতর প্রতিফলন ঘটে।
সিইসি তাঁর ভাষণের শেষ দিকে নির্বাচনপ্রক্রিয়ায় সব রাজনৈতিক দল, প্রার্থী ও জনগণের অংশগ্রহণ ও সক্রিয় সহযোগিতা কামনা করেন।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo